খেলাধুলা

এক ঘটনার জন্ম, চামড়া কারখানা থেকে লর্ডসে ম্যাচসেরা ক্রিকেটার কে দেখে নিন এক নজরে

স্পোর্টস ডেস্ক: ক্রিকেট কখনো হাসায়, কখনো কাঁদায়, মূহুর্তেই বদলে দেয় কারো জীবন। গৌরবময় অনিশ্চয়তার এই খেলায় সুনিশ্চিত নয় কোন কিছুই। আজকের হিরো আগামীকাল হয়ে যান ভিলেন, বর্তমানে শূন্যে থাকা ক্রিকেটার ভবিষ্যতে হয়ে যান মহাতারকা। তেমনই এক ঘটনার জন্ম দিয়েছেন পাকিস্তানের ডানহাতি পেসার মোহাম্মদ আব্বাস।

সদ্য সমাপ্ত লর্ডস টেস্টে আব্বাসের পেস বোলিং তোপে মাত্র সোয়া তিন দিনেই ম্যাচ হেরেছে স্বাগতিক ইংল্যান্ড। দুই ইনিংস মিলিয়ে মাত্র ৬৪ রান খরচায় ৮ উইকেট নিয়ে ম্যাচসেরার পুরষ্কার জিতেছেন আব্বাস। মাত্র ৭ টেস্ট ক্যারিয়ারে এরই মধ্যে ৪০ উইকেট নিয়েছেন তিনি। কিন্তু এতোটা সহজ ছিলো না আব্বাসের প্রাথমিক জীবন।

পাঞ্জাব প্রদেশের ঝাটকি গ্রামের সাধারণ এক বাসিন্দা ছিলেন আব্বাস। ক্রিকেটের প্রতি আসক্তি ছিল ছোটবেলা থেকেই। কিন্তু পরিবারের অর্থনৈতিক অবস্থা কখনোই তাকে সুযোগ দেয়নি ক্রিকেট নিয়ে স্বপ্ন দেখার। এমনকি পরিবারের আর্থিক অবস্থার পরিবর্তন আনতে দেশ ছাড়ার কথাও ভাবছিলেন ২৮ বছর বয়সী এই পেসার। সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে নিজের জীবনের গল্প জানান আব্বাস।

তিনি বলেন, ‘আমার পরিবারে আমিই বড় সন্তান। তাই জীবিকান্বেষণে দেশ ছাড়ার পরিকল্পনাও করেছিলাম একবার। তবে তখন আমার বন্ধুরা আমাকে বুঝাচ্ছিলো যে দেশের অবস্থা বদলাবে, এখানেই থেকে যাই যেনো।’ মূলত বন্ধুদের আশ্বাসেই দেশে থেকে যান আব্বাস। কাজ খুঁজতে থাকেন দেশের ভেতরেই।

কোন উপায়-অন্ত না পেয়ে তিনি বাধ্য হয়ে কাজ নেন একটি চামড়া কারখানায়। সেখানে কাজ করেন ৮ মাস। পরে দুই বছর ভূমি অধিদপ্তরে জমির রেজিস্ট্রি বিষয়ক কাজে ছিলেন তিনি। আব্বাস বলেন, ‘শুরুতে আমি একটি চামড়া কারখানায় কাজ নেই, সেখানে ৮ মাস ছিলাম। পরে ২ বছর ভূমি অধিদপ্তরের অধীনে কোর্টের জমি রেজিস্ট্রি বিষয়ক কাজ করেছি। আমি কখনোই ক্রিকেট ছাড়ার কথা ভাবিনি।’

ক্রিকেটের প্রতি অগাধ ভালোবাসা এবং আত্মনিবেদনের জোরেই মূলত এখনের এই অবস্থানে আসতে পেরেছেন আব্বাস। কোর্টে কাজ করার সময় তার উকিল বন্ধুরা তাকে ক্রিকেট খেলতে সুযোগ দেয় এবং সেখানেই বাজিমাত করেন আব্বাস। তিনি বলেন, ‘জেলা অনুর্ধ্ব-১৯ দলে খেলার প্রস্তাব পেয়েছিলাম আমি। আমার উকিল বন্ধুরা প্রথমে মানা করলেও, পরে ঠিকই আমাকে সুযোগ করে দেয় খেলার।’

সেই যে শুরু তার ক্রিকেট অধ্যায়ের, এরপর থেকে একের পর এক বাজিমাত করতে থাকেন আব্বাস। বয়সভিত্তিক ক্রিকেট পেরিয়ে শিয়ালকোটের হয়ে সুযোগ পান পাকিস্তানের জনপ্রিয় ঘরোয়া টুর্নামেন্ট কায়েদ-এ-আজম ট্রফিতে। এই টুর্নামেন্টে পরপর দুই মৌসুমে ৬১ এবং ৭১ উইকেট নিয়ে সবাইকে তাক লাগিয়ে দেন ডানহাতি এই পেসার।

ফলে তাকে দলে নিতে দ্বিতীয়বার আর ভাবেনি ইনজামাম-উল-হকের নেতৃত্বাধীন পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের নির্বাচক প্যানেল। আর সুযোগ পেয়ে এখনো পর্যন্ত ৭টি টেস্ট ম্যাচে ৪ বার নিয়েছেন ৪ উইকেট, ২ বার নিয়েছেন ৫ উইকেট। সবশেষে ঐতিহাসিক লর্ডস ক্রিকেট গ্রাউন্ডে জিতেছেন ম্যাচসেরার পুরষ্কার। চামড়া কারখানায় কাজ করার সময় তিনি নিশ্চয়ই হয়তো ভাবেননি এতোদূর যাবেন ক্রিকেটের হাত ধরে।