খেলাধুলা

অসহায় ফিলিস্তিনিদের স্বার্থে বিপুল অর্থের লোভ সামলে ইসরায়েলে খেলা বাতিল করেন মেসি

স্পোর্টস ডেস্ক: অসহায় ফিলিস্তিনিদের স্বার্থে বিপুল অর্থের লোভ সামলে ইসরায়েলে খেলা বাতিল করেন মেসি। মেসিদের ফুটবল মানেই কাড়ি কাড়ি টাকা। আসন্ন রাশিয়া বিশ্বকাপ উপলক্ষে ইসরায়েলের বিপক্ষে জেরুজালেমে অনুষ্ঠিতব্য প্রস্তুতি ম্যাচটি বাতিল করেছে আর্জেন্টিনা। বিশ্বকাপের আগে এটাই ছিল আকাশী নীল জার্সিধারীদের সর্বশেষ প্রস্তুতি ম্যাচ। ইসরায়েল আর ফিলিস্তিনের মধ্যকার যে রাজনৈতিক টানাপোড়েন চলছে, তার প্রেক্ষিতেই বাতিল করা হয়েছে ম্যাচটি। আর এই ম্যাচ বাতিলে বড় ভূমিকা রেখেছেন ফুটবলের রাজপুত্র লিওনেল মেসি আর মাচেরানো।

আর্জেন্টাইন সংবাদমাধ্যম বলছে, এই ম্যাচটি খেললে প্রতি মিনিটের জন্য ৫০ হাজার ডলার করে পেতেন লিওনেল মেসি! জেরুজালেমে ম্যাচটি আয়োজন করতে আর্জেন্টাইন ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনকে এরই মধ্যে ১ মিলিয়ন ডলার দিয়েছে ইসরায়েল ফুটবল ফেডারেশন। চুক্তি ছিল ম্যাচের পর আর্জেন্টিনার হাতে আরও ৩ মিলিয়ন ডলার তুলে দেওয়ার। সফর বাতিল করায় সেই ১ মিলিয়ন ডলারও এবার ফেরত দিতে হচ্ছে আর্জেন্টিনাকে। সেইসঙ্গে একটি প্রস্তুতি ম্যাচও বাতিল হওয়ার ধাক্কা!

জেরুজালেমে মার্কিন দূতাবাস স্থাপন নিয়ে গত কয়েকদিনে ফিলিস্তিনিদের ওপর বর্বর নির্যাতন চালিয়েছে ইসরায়েলি সেনাবাহিনী। তখন থেকেই ম্যাচটি না খেলার জন্য মেসি ও আর্জেন্টিনার প্রতি আহ্বান জানিয়ে আসছিল ফিলিস্তিনের ফুটবল অঙ্গণ। এক সময় ম্যাচটি খেললে মেসির জার্সি পোড়ানোর হুমকিও দেওয়া হয়। শেষ পর্যন্ত ম্যাচটি বাতিল করায় লিওনেল মেসি এখন মুক্তিকামী ফিলিস্তিনিদের নয়নের মণি।

ফিলিস্তিনি ফুটবল এসোসিয়েশন এক বিবৃতিতে ইসরায়েলের সাথে ম্যাচ বাতিলের জন্য আর্জেন্টিনার স্ট্রাইকার লিওনেল মেসি এবং তার সতীর্থদের ধন্যবাদ জানিয়েছে। ফিলিস্তিনি ফুটবল এসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান জিবরি রাজৌব বলেছেন, ‘এই সিদ্ধান্তে মূল্যবোধ, নৈতিকতা এবং খেলা জয়লাভ করেছে এবং এ ম্যাচ বাতিলের মাধ্যমে ইসরায়েলকে লাল কার্ড প্রদর্শন করা হয়েছে।’

অন্যদিকে ইসরায়েলের সংস্কৃতি মন্ত্রী মিরি রেগেভ জেরুসালেম পোস্ট পত্রিকাকে বলেছেন, ‘আমি আশা করি এ সিদ্ধান্তের মাধ্যমে আর্জেন্টিনা জাতীয় কোন সন্ত্রাসবাদের জন্ম দেবে না।’

উল্লেখ্য, সাম্প্রতিক সময়ে ফিলিস্তিনদের বিক্ষোভের সময় ইসরায়েলি বাহিনীর গুলিতে অন্তত ১২০ জন ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছে।

আর্জেন্টিনা ফুটবল ম্যাচ বাতিলের খবর গাজায় ছড়িয়ে পড়ার পর ফিলিস্তিনদের মাঝে বেশ উৎফুল্ল ভাব দেখা গেছে। যে মেসির জার্সি তারা পোড়াতে চেয়েছিল, সেই মেসি অর্থের কাছে মানবতাকে বিসর্জন দেননি।