খেলাধুলা

ইতিহাস গড়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ জিতলো বাংলাদেশ দল

ইতিহাস গড়ল বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল। তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে এই প্রথম কোন বড় দলকে সিরিজ জয় করলো বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল। এর আগে বাংলাদেশ দল মাত্র একবার তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ জয় লাভ করেছে। সেটিও আবার আজ থেকে ছয় বছর আগে। ২০১২ সালের জুলাই মাসে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তৃতীয় এবং শেষ টি-টোয়েন্টি ম্যাচে টসে জিতে ব্যাটিংয়ে নেমেছে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে ১৮৪ রান সংগ্রহ করেছে বাংলাদেশ দল। টসে জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে বিধ্বংসী রূপে ব্যাট করতে থাকেন দুই ওপেনার লিটন কুমার এবং তামিম ইকবাল। বাংলাদেশ ক্রিকেট ইতিহাসে দ্রুততম ৫০ রান করেন এই দুই ব্যাটসম্যান। ৩.৪ ওভারে দলীয় ৫০ রান পার করে তারা।

তবে আজ বেশিদূর এগোতে পারেননি তামিম ইকবাল। দলীয় ৬১ রানের মাথায় ১৩ বলে ২১ রান করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন তিনি। আর তামিম আউট এর পর সে ভাবে রান তুলতে পারেনি সৌম্য সরকার, মুশফিকুর রহিম। এরপর এই মাত্র ৫ রান করে প্যাভিলিয়নে ফিরে যান সৌম্য সরকার। তবে মোহাম্মদ আশরাফুলের ২০ বলে হাফ সেঞ্চুরির রেকর্ডটি ভাঙতে পারলেন না লিটন কুমার।

মোহাম্মদ আশরাফুলের পর দ্রুততম ব্যাটসম্যান হিসেবে ২৪ বলে ফিফটি তুলে নেন লিটন কুমার। দলীয় ৯৭ রানের মাথায় প্যাভিলিয়নে ফিরে যান মুশফিকুর রহিম। ১২ রান করেন তিনি। ৫ রান পরে ৩২ বলে ৬১ রান করে প্যাভিলিয়নে ফিরে যান লিটন কুমার।

এরপর কিছুটা প্রতিরোধ গড়েন সাকিব আল হাসানের মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। ১৪৬ রানের মাথায় ২২ বলে ২৪ রান করে ফেরেন সাকিব আল হাসান। শেষের দিকে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের ২০ বলে ৩২ এবং আরিফুল হকের ১৮ রানে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ১৮৫ রানের টার্গেট দেয় বাংলাদেশ।

১৮৫ টার্গেট ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই উইকেট হারায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ দল। ২৬ রানের মাথায় ৬ রান করা আন্দ্রে ফ্লেচারকে নিজের প্রথম ওভারেই আউট করেন মোস্তাফিজুর রহমান। পরের ওভারে বোলিংয়ে আসেন নাজমুল হাসান অপু।

নিজের তৃতীয় বলেই বল ধরতে গিয়ে ইনজুরিতে পড়েন তিনি। পরবর্তী বোলার হিসাবে সৌম্য সরকার এসেই উইকেট তুলে নেন। ৩০ রানের মাথায় বিধ্বংসী ওয়ালটনক ১৭ রানে ক্যাচ আউট করেন তিনি। ইনিংসের ৬ ওভারে নিজের প্রথম ওভারে সামিউলসকে বোল্ড করেন সাকিব। এর পরে কিছুটা প্রতিরোধ গড়ে তোলেন দিনেশ রামদিন এবং রভম্যান পাওয়েল।

তবে দলীয় ৭৭ রানের মাথায় দিনেশ রামদিনকে বোল্ড করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন রুবেল হোসেন। পরের ওভারে ইরভম্যান পাওয়েলকে আউট করেন মুস্তাফিজুর রহমান। তবে অন্য প্রান্ত থেকে বাংলাদেশ দলকে বিপদে ফেলতে থাকেন আন্দ্রে রাসেল। দলীয় ১২৮ রানের মাথায় কার্লোস ব্রেথওয়েট আউট হলেও অন্য প্রান্ত থেকে ব্যাটিং তান্ডব চালান আন্দ্রে রাসেল। তবে তখনো জয়ের জন্য ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের প্রয়োজন ৩ ওভারে ৫০ রান। তবে তখনই রাসেলকে প্রথম বলেই ৪৭ রানে ক্যাচ আউট করেন মুস্তাফিজুর রহমান।