খেলাধুলা

প্রথম পরীক্ষাতেই সফল রোডস?

স্পোর্টস ডেস্কঃ বাংলাদেশের সাবেক কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহে বিদায় নেয়ার পর থেকেই হন্যে হয়ে কোচ খুঁজে আসছিলো বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। বেশ কয়েক মাস টাইগাররা ছিল কোচ বিহীন। আর কোচ বিহীন দলের অবস্থা হয়েছিলো অনেকটা নাবিক বিহীন জাহাজের মতো।

তবে মাঝে দুই থেকে তিন জন হাই প্রোফাইল কোচ বিসিবিকে সাক্ষাৎকারও দিয়ে গেছেন। কিন্তু কাজের কাজ শেষ পর্যন্ত আর কিছুই হয়নি। অবশেষে জুন মাসের প্রথম সপ্তাহ সেই প্রতীক্ষার অবসান হয়। বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের হেড কোচ হিসেবে নিয়োগ পান ইংল্যান্ডের সাবেক ক্রিকেটার স্টিভ রোডস।

কিন্তু কেমন কোচ তিনি? এই ব্রিটিশ পারবেন তো হাথুরুর রেখে যাওয়া বাংলাদেশকে আরও ওপরে নিয়ে যেতে?

স্টিভ রোডসের নাম শুনে অনেকেই হয়তো তাঁকে চিনতে পারবেন না। কারণ দেশের হয়ে মাত্র ১১টি টেস্ট এবং ৯টি ওয়ানডে খেলার অভিজ্ঞতা রয়েছে তাঁর। এই ১১ টেস্টে ২৪.৫০ গড়ে ২৯৪ রান সংগ্রহ করেছিলেন তিনি। এছাড়াও ৯টি ওয়ানডেতে তাঁর সংগ্রহ ছিলো ১৭.৮৩ গড়ে ১০৭ রান। । রোডস উইকেটরক্ষকের পাশাপাশি ছয় কিংবা সাত নম্বরে বেশ কার্যকর ব্যাটসম্যান হিসেবেও পরিচিত ছিলেন।এই ইংলিশ হয়তো ক্রিকেটার হিসেবে তাঁর ক্যারিয়ার আরো এগিয়ে নিয়ে যেতে পারতেন।

তবে রোডস খেলোয়াড় হিসেবে সফল না হলেও কোচিং পেশায় হাত পাকিয়েছেন। ইংলিশ কাউন্টী দল ওরচেস্টারশায়ারের পরিচালক এবং কোচ হিসেবে টানা ১১ বছর কাজ করেন তিনি। যদিও ৫৩ বছর বয়সী এই কোচের জাতীয় দলের সাথে কাজ করার তেমন অভিজ্ঞতা নেই। তবে ইংল্যান্ড অনূর্ধ্ব-১৯ দলের হেড কোচ হিসেবে বেশ কিছুদিন কাজ করেছেন তিন।

তাই ক্রিকেটীয় স্ট্র্যাটেজির সবকিছুই তাঁর ভালো ভাবে জানা আছে। মোট কথা হাথুরু যেমন প্রায় অপরিচিত ছিলেন সবার কাছে ইনিও অনেকটা তেমন। তবে পরবর্তী বিশ্বকাপকে মাথায় রেখেই এমন কোচ তা বোঝাই যাচ্ছে। সেই সঙ্নাগে কি স্কাউট হিসেবে অত্যন্ত ভাল কাজ করেছেন আগে।

এদিকে, টাইগার ক্রিকেটারদের মধ্যে একমাত্র সাকিবেরই অভিজ্ঞতা আছে রোডসের সঙ্গে কাজ করার। সাকিব ২০১০ সালে কাউন্টি দল উস্টারশায়ারের হয়ে খেলার সময় রোডসও ছিলেন দলটির ডিরেক্টর অব ক্রিকেট।

তবে রোডস তাঁর প্রথম এ্যাসাইনমেন্টে এখন পর্যন্ত সফল। ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে টেস্ট সিরিজে বাজেভাবে হারেলেও ওয়ানডেতে ঘুরে দাঁড়ায়। জিতে নেয় সিরিজ। টি২০ সিরিজে প্রথম ম্যাচে হার। তবে পরের ম্যাচেই আবার ঘুরে দাঁড়ায় টাইগাররা। এখন শেষ টি২০ ম্যাচে আগামীকাল জিততে পারলেই টি২০ সিরিজও জিতে নেবে টাইগাররা। সেই সঙ্গে শুভসূচনাও হবে রোডস যুগের।