খেলাধুলা

সমর্থকদের ধন্যবাদ জানিয়ে যা বললেন সাকিব

স্পোর্টস ডেস্কঃ ক্রিকেট ম্যাচের অন্যতম আকর্ষণ মাঠের উপস্থিত দর্শকরা। নিজেদের দল ম্যাচ থেকে খানিকটা পিছিয়ে পড়লেও গ্যালারি থেক দর্শকরা নিজেদের দলের ক্রিকেটারদের উৎসাহ জোগায়। ক্রিকেট মাঠে দর্শকদের এমন নজির প্রায় দেখা গিয়েছে। তবে উইন্ডিজরা একটু ভিন্ন। দীর্ঘ এক মাসের মত উইন্ডিজ সফরে ছিল বাংলাদেশ। দুই টেস্ট, তিন ওয়ানডে ও তিনটি টি-টোয়েন্টি খেলেছে স্বাগতিকদের বিপক্ষে।

দুইটি টি-টোয়েন্টি বাদে সবকটি ম্যাচই অনুষ্ঠিত হয়েছে উইন্ডিজে। নিজেদের মাঠে দর্শকদের উপস্থিতি ছিল খুবই সল্প সংখ্যক। সেখানে বাংলাদেশের সমর্থকদের পাওয়া তো দুস্কর ব্যাপার। তবুও বেশ কয়েকজন দর্শক মাঠে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশকে উৎসাহ দিতে। তবে উইন্ডিজের চেয়ে পুরোপুরি ভিন্ন যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডার লডারহিল স্টেডিয়ামে। সেন্ট কিটসে প্রথম টি-টোয়েন্টি শেষে সিরিজের বাকি দুই টি-টোয়েন্টি খেলতে যুক্তরাষ্ট্র গিয়েছিল দুই দল।

এই মাঠে খেলার উইন্ডিজের পূর্ব অভিজ্ঞতা থাকলেও বাংলাদেশের জন্য নতুন। প্রথম টি-টোয়ন্টি শেষে বাংলাদেশ অধিনায়ক সাকিব আল হাসান আশা করেছিল ফ্লোরিডায় দর্শকরা দলকে সমর্থন জোগাতে মাঠে আসবেন। দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টির আগেও দর্শকদের উপস্থিতির কথা জানিয়েছিলেন বাংলাদেশ দলপতি। হলো তাই। দ্বিতীয় ম্যাচে লডারহিলে বাংলাদেশকে দলকে যে পরিমাণ দর্শকরা মাঠে উপস্থিতি তাতে বুঝাই কষ্ট হচ্ছিল লডারহিস নাকি মিরপুর।

মাঠে উপস্থিত থাকা বাংলাদেশি দর্শকদের হতাশ করেনি টাইগাররা। প্রথম টি-টোয়েন্টিতে উইন্ডিজের কাছে হেরে সিরিজে পিছিয়ে থাকলেও দ্বিতীয় ও তৃতীয় টি-টোয়েন্টি জিতে টি-টোয়েন্টি সিরিজ নিজেদের করে নিয়েছে বাংলাদেশ। ম্যাচ শেষে মাঠে উপস্থিত থাকা দর্শকদের ধন্যবাদ জানিয়েছেন সাকিব। এটাও বলেছেন তারা যেভাবে উৎসাহ জুগিয়েছে মনেই হয়নি বাংলাদেশের বাইরে খেলছে সাকিবরা।

‘অনেক বাংলাদেশি মাঠে ছিলেন। তারা যেভাবে সমর্থন জানিয়েছেন আমাদের, মনেই হয়নি দেশের বাইরে খেলছি। তারা তো দ্বাদশ ক্রিকেটারের ভূমিকা পালন করেছেন।’

তৃতীয় ও শেষ টি-টোয়েন্টিতে উইন্ডিজকে বৃষ্টির আইনে ১৯ রানে হারিয়ে সিরিজ জিতেছে বাংলাদেশ। শুধু দলই তিন ম্যাচ সিরিজে অলরাউন্ড নৈপুণ্য দেখিয়েছেন দলপতি সাকিব। যার কারণে পেয়েছেন সিরিজ সেরার পুরস্কারও। ওয়ানডেতে যেভাবে ধারাবাহিক পারফরম্যান্স বজায় রেখেছেন সেটি টেস্ট ও টি-টোয়েন্টিতেও নিয়মিত করার কথা জানিয়েছে তিনি।

‘ক্রিকেটারর অনেক কঠোর পরিশ্রম করেছে। এর চাইতে আমি বেশিকিছু আশা করতে পারিনা। আমরা ২০১৫ বিশ্বকাপ থেকেই ওয়ানডেতে নিয়মিত পারফর্ম করছি। আমরা জানি কিভাবে কঠিন পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে হয়। আমাদের টেস্ট নিয়ে অনেক কাজ করতে হবে। শুধু তাই নয় দেশের বাইরে ভালো খেলতে হবে।’