খেলাধুলা

এইমাত্র পাওয়াঃ এবারের এশিয়া কাপে তামিমের উপেনিং পার্টনার হবেন যিনি

এখন লক্ষ্য সামনের মাসে হতে যাওয়া এশিয়া কাপের আসরে। এশিয়া কাপের অতীত রেকর্ড টাইগারদের ভালই। গত আসরের ফাইনালেও লড়াই করে ভারতের কাছে হেরেছিল বাংলাদেশ। তাই এবার চাওয়া আরো ভাল কিছু।আর ওয়ানডে ফরমেটে মাশরাফি বাহিনী এখন যে কোন করে দেখাতে পারে তার আর বলার অপেক্ষা রাখে না। ২০১৫ বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনাল আর ২০১৭ চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে সেমিফাইনাল। তাই লক্ষ্য এবার শিরোপা স্পর্শ করা।

সেই লক্ষ্য মাশরাফি বাহিনী ভালোই ছন্দে আছে। কিন্তু ওপেনিং পজিশনে তামিমের সাথীকে চরম দুশ্চিতায় আছে বাংলাদেশ দল। ওপেনিংয়ে ২০১৫ তে ভাল করা সৌম্য সরকারের অবস্থা বলার মত না। বার বার সুযোগ পেয়েও কিছুতেই ফিরতে পারছেন না রানে।

অন্যদিকে এনামুল হক বিজয়কেও পরখ করা হলো টানা ৭ টি ম্যাচ খেলিয়ে কিন্তু তিনিও ব্যর্থ। তামিমের সাথে ভাল শুরু করার কাউকে পাচ্ছে না বাংলাদেশ। সাম্প্রতিক সময় টেস্ট ও টি-টোয়েন্টিতে তামিমের সাথে ওপেনিংয়ে লিটন দাস ভাল করলেও ওয়ানডেতে তেমন অভিজ্ঞতায় নেই তামিমকে ভাল মত সঙ্গ দেওয়া।

এই অবস্থায় আসন্ন এশিয়া কাপে তামিমের জুটি হিসাবে মোহাম্মদ আশরাফুলকে দেখতে চান বাংলাদেশের জনপ্রিয় ধারাভায়াষ্যকার জাফরউল্লাহ শরাফত। তিনি মনে বাংলাদেশের প্রথম সুপার স্টার ও সবচেয়ে অভিজ্ঞ এই ব্যাটসম্যানকে আসন্ন এশিয়া কাপে তামিমের সঙ্গী হিসাবে আশরাফুলকে সুযোগ দিয়ে দেখা যেতে পারে।

একটি টিভি শোতে জাফরউল্লাহ শরাফত বলেন, ‘আমার মনে মোহাম্মদ আশরাফুল যিনি দেশের প্রথম সুপার স্টার তাকে তামিমের সাথে এশিয়া কাপে ট্রাই করে দেখা যেতে পারে। যেহেতু আমাদের হাতে আর কোন ওপেনিং ব্যাটসম্যান নেই। তামিমের একজন যোগ্য সঙ্গী দরকার’।জাফরউল্লাহ শরাফত আরো বলেন, ‘আশরাফুল অনেক অভিজ্ঞ তাই তামিমের সাথে তাকে দেখা গেলে সেটা হতে পারে বাংলাদেশ ক্রিকেটের জন্য র মঙ্গলের কারণ।’।

উলেক্ষ্য এই মাসের ১৩ তারিখ মোহাম্মদ আশফুলের উপর থেকে সব ধরণের নিষেধাজ্ঞা উঠে যাচ্ছে। তাই জাতীয় দল সহ সব ধরণের খেলায় অংশ নিতে পারবেন মোহাম্মদ আশরাফুল।২০১৩ সালের ১৩ আগস্ট থেকে সব ধরনের ক্রিকেট থেকে নিষিদ্ধ হন আশরাফুল। দীর্ঘ ৫ বছরের নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে ১৩ আগষ্ট থেকে মুক্ত হবেন আশরাফুল।

মোহাম্মদ আশরাফুল ৬১ টেস্ট থেকে করেছেন ৬ সেঞ্চুরি ও ৮ ফিফটি। আর ১৭৭ ওয়ানডে খেলা আশরাফুলের ব্যাট থেকে আসে ৩ সেঞ্চুরি ও ২০ ফিফটি। এছাড়া আন্তর্জাতিক টি-২০ ম্যাচও খেলেছেন ২৩টি।