খেলাধুলা

রক্ষণশীল পরিকল্পনায় দেখে বিরক্ত সৌরভ

স্পোর্টস ডেস্কঃ লর্ডসেও ইংল্যান্ডের কাছে পরাজিত হয়ে পাঁচ টেস্টের সিরিজে ০-২ পিছিয়ে পড়ল ভারত। রবিবার ম্যাচের চতুর্থ দিন ৩৯৬/৭ স্কোরে ইনিংস ডিক্লেয়ার করে ইংল্যান্ড। দুই ইনিংস মিলিয়ে ক্রিজে সাকুল্যে ভারতীয় ব্যাটিংয়ের আয়ু দাঁড়াল ৮২.২ ওভার। ইংরেজ পেসারদের সুইংয়ের বিরুদ্ধে ফের বিপর্যয় বিরাট কোহেলীদের। বৃষ্টিতে নষ্ট হওয়া সময় বাদ দিলে কার্যত দু’দিনেই ইনিংস ও ১৫৯ রানে পরাস্ত হল ভারত।

ব্যাট করতে নেমে স্টুয়ার্ট ব্রড-জেমস অ্যান্ডারসনদের সুইংয়ের বিরুদ্ধে কেঁপে গিয়ে মাত্র ১৩০ রানে দ্বিতীয় ইনিংস গুটিয়ে যায় ভারতের। প্রথম ইনিংসের মতো দ্বিতীয় ইনিংসেও দলের সর্বোচ্চ স্কোরার কোনও প্রথম সারির ব্যাটসম্যান নন। বরং আর. অশ্বিন। তাঁর ৩৩ ও হার্দিক ২৬ ছাড়া আর কেউই উল্লেখ করার মতো কিছু করেননি। কোহেলী ১৭ রান করে স্লিপে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন। হার দেখে ক্ষুব্ধ সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। ধারাভাষ্য দেওয়ার সময় জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক বলছিলেন, ‘অশ্বিন ও হার্দিক ছাড়া কেউ পাল্টা আক্রমণের পথেই গেল না। এত রক্ষণাত্মক হয়ে পড়লে সমস্যা। ইংরেজ বোলাররা মাথায় চেপে বসল।’

পরাজয়ের মধ্যে ভারতীয় শিবিরের উদ্বেগ বাড়াল বিরাট কোহেলীর পিঠের ইনজুরি। যে কারণে শনিবার বেশ কিছুক্ষণ ফিল্ডিং করতে পারেননি তিনি। সে জন্যই নিয়ম অনুযায়ী রবিবার চার নম্বরে না নেমে তাঁকে ব্যাট করতে হল পাঁচ নম্বরে। ব্যাটিংয়ের ফাঁকেও শুশ্রূষা করালেন। টিভি চ্যানেলে বিরাট বললেন, ‘পিঠের নীচের দিকে চোট। এটা নতুন নয়। ট্রেন্ট ব্রিজে পরের টেস্টের আগে পাঁচদিন সময় আছে। তার মধ্যে আশা করছি সুস্থ হয়ে যাব।’ দলের বিপর্যয় নিয়ে তিনি বলেন, ‘‘গর্ব করার মতো খেলিনি। গত পাঁচটি টেস্টে প্রথমবার এরকম একপেশেভাবে হারলাম।’ ম্যাচের সেরা ক্রিস ওকস বলেছেন, ‘‘সেঞ্চুরি করে অসম্ভব তৃপ্ত।’ অধিনায়ক জো রুট বলেছেন, ‘বোলাররা ব্যতিক্রমী পারফরম্যান্স করেছে।’