গোটা দেশের সঙ্গে গর্বিত বাংলাও।

Loading...

দাঁতের ব্যথাতে কষ্ট পাচ্ছিলেন। তাকে উপেক্ষা করেই ইতিহাস গড়লেন তিনি। এ যেন কোনও উপন্যাসের পাতায় পড়া ঘটনা। দারিদ্রের সঙ্গে লড়াই করে উঠে আসা। আর তার পর দাঁতের অসহ্য যন্ত্রণা সহ্য করে লড়াই আর অনমনীয় জেদকে সম্বল করে দেশকে সোনা এনে দেওয়া। জলপাইগুড়ির মেয়ে স্বপ্না বর্মন এভাবেই এবারের এশিয়ান গেমসে দেশকে একাদশতম সোনা এনে দিলেন। গোটা দেশের সঙ্গে গর্বিত বাংলাও।

সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে জানা যাচ্ছে, জাকার্তায় এ্যাথলেটিক্স বিভাগে ভারতের এটি পঞ্চম সোনা। তিনি সোনা জিতলেন হেপ্টাথলনে। নিঃসন্দেহে এটি এ্যাথলেটিক্সের অন্যতম কঠিন ইভেন্ট। আর তাতেই সেরা হলেন স্বপ্না। সব মিলিয়ে ৬০২৬ পয়েন্ট পেয়েছেন ২১ বছরের স্বপ্না।  স্বপ্নাই দেশের প্রথম হেপ্টাথ্যালিট যিনি এশিয়ান গেমসে সোনা পেলেন।

স্বপ্নার বাবা  পেশায় ভ্যান চালক। তাও গত পাঁচ বছর তিনি শয্যাশায়ী। তাঁর ব্রেন স্ট্রোক হওয়ার পর থেকেই সংসারে তীব্র অনটন। এই অবস্থায় স্বপ্নার লড়াই। অবশেষে সেই লড়াইয়ের স্বীকৃতি। দেশকে গর্বিত করলেন বাংলার মেয়ে। জানা যাচ্ছে, দাঁতের ব্যথাতে কষ্ট পাচ্ছিলেন তিনি। কিন্তু সেই শারীরিক অস্বাচ্ছন্দ্যকেও অনায়াসে হারিয়ে দিয়ে ইতিহাস গড়লেন স্বপ্না।

Be the first to comment on "গোটা দেশের সঙ্গে গর্বিত বাংলাও।"

Leave a comment

Your email address will not be published.


*