Notunshokal.com
খেলাধুলা

মোসাদ্দেককে নিয়ে এাবার যে মন্তব্য করল তার স্ত্রী

বাংলাদেশ জাতীয় দলের ক্রিকেটার মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন তার স্ত্রী সামিয়া শারমিন উষা। মামলার পর মোসাদ্দেকের বিষয়ে কথা বলতে মিডিয়ার সামনে এসছেন তিনি।

সম্প্রতি এক পোর্টালে সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন তার সম্পর্কে। সাক্ষাৎকারে সামিয়া দাবি করেন, আত্মহত্যার হুমকি দিয়ে তাকে বিয়ে করেন মোসাদ্দেক। ওই সময় সংসার চালাতেই হিমশিম খেতে হয় তাকে। ফলে প্রথম তিন বছর তাঁর যাবতীয় ভরণ পোষণ করতো তাঁর পরিবারই।

মোসাদ্দেকের স্ত্রী এসময় বলেন, বাংলাদেশ অনুর্ধ্ব-১৯ দলে খেলার সময়েই মেয়েরা মোসাদ্দেককে ম্যাসেজ করতো। আমি এসব নিয়ে কিছু বলতে গেলে মানসিক ও শারীরিক নির্যাতন করতো। এরপর ন্যাশনাল টিমে নিয়মিত হওয়ার পর আমার সঙ্গে খারাপ ব্যবহারের মাত্রা বেড়ে যায়।

বাসায় ফ্রেন্ডস নিয়ে আড্ডা দিতো, ড্রিংকস করতো মোসাদ্দেক। এমনকি শহরের সিলভার ক্যাসেলসহ বিভিন্ন হোটেলে মেয়ে নিয়ে অবাধ যাতায়াত ছিলো তার। আমি ওর মাকে বলতাম-আপনি তো কিছু বলতে পারেন। ওর মা বলতো আমি কিছু বলতে গেলে ও (মোসাদ্দেক) আমাকে বাসা থেকে বের করে দিবে। টাকা বন্ধ করে দিবে।’

আবেগ মেশানো কন্ঠে সামিয়া বরেন, ‘মোসাদ্দেক ঢাকায় বাসা নিয়েছে এক বছর হয়েছে। সেখানেও অনেক মেয়ে নিয়ে থাকে। আস্তে আস্তে আমাদের ঝামেলা বাড়ে। ওর খারাপ সময়ে আমি ওর পাশে ছিলাম। ভালো সময়ে আমাকে মোসাদ্দেক অত্যাচার ও এড়িয়ে চলতে শুরু করে।’

স্ত্রী সামিয়া বলেন, ‘আমার নাম্বার সব সময় ওর ফোনে ব্লক করে রাখতো। ফেসবুকসহ কোন কিছুতেই আমি ওর সঙ্গে অ্যাড ছিলাম না। এসব নিয়ে কিছু বললেই অত্যাচারের মাত্রা বেড়ে যেতো। পরিবারের সবাই নিয়ে বসে ঝামেলা মিচ্যুয়াল করেছে কয়েকবার। মোসাদ্দেক তখন বলেছে, ভালোভাবে সংসার করবে, নিজে সংশোধন হবে।’

সামিয়ার অভিযোগ, ‘অত্যাচারের পরও আমি ওকে (মোসাদ্দেক) ছেড়ে যাইনি। আমি বিয়ে করেছি ওকে ছাড়ার জন্য না। কিন্তু ও যৌতুকের জন্য আমাকে আবারো প্রেসার দিতে শুরু করলো। ওর লাখ লাখ কোটি কোটি টাকা থাকতে পারে। কিন্তু আমাদের মতো মধ্যবিত্ত পরিবারের কাছে ১০ লাখ টাকা অনেক বড় ব্যাপার। আমার বাবা নাই। ভাইয়েরাও আলাদা ব্যাপার। ও বুঝতে পারলো এই প্রেসার দিয়ে কাজ হতে পারে। একটি সিনক্রিয়েট হবে ওকে তাড়িয়ে দিতে পারবো।’

তিনি আরো বলেন, ‘মোসাদ্দেকের প্রেসারের কারণে আমার বাবা আমার নামে জমির যে অংশ দিয়েছে সেটা ওর বাসায় দিয়ে এসেছে আমার ভাই। বলেছে, তোকে ক্যাশ টাকা তো দিতে পারলাম না তুই এটাতে বাড়ি করতে বা ভাড়া দিতে পারিস। তারপর কিছুদিন স্টপ গেছে। কতদিন পর আবার অত্যাচার শুরু হয়েছে।’

মোসাদ্দেক ও তাঁর পরিবারের অত্যাচারে তাঁর বাচ্চা নষ্ট হয়ে যায় বলেও অভিযোগ করে সামিয়া শারমিন উষা বলেন, ‘ও যখন ওয়েস্ট ইন্ডিজে গেলো গত এপ্রিল মাসে তখন আমি কনসিপ করছিলাম। ডক্টর বেড রেস্ট দিয়েছে। তার মাকে বললাম। কিন্তু কনসিভ করার পর সবার অত্যাচারের মাত্রা বেড়ে গেলো। ওর মাও আমাকে বিভিন্নভাবে মারপিট করতো।’

আরও পড়ুন

হ্যামিল্টন মাসাকাদজা অাউট। জিম্বাবুয়ের তৃতীয় উইকেটের পতন

হ্যাটট্রিক করে বিশ্বকাপের মিশন শুরু করলেন মেসি। দেখুন আজকের ম্যাচে মেসির হ্যাটট্রিকের ভিডিও

হ্যাটট্রিক করলো চেলসি

Syed Hasibul