Notunshokal.com
খেলাধুলা

অাইসিসির অাইনে কি বলে লিটন অাউট নাকি নট অাউট। জেনে নিন বিস্তারিত

ভারতের বিপক্ষে ভালো শুরু করলো ভালো শেষ করতে পারেনি বাংলাদেশ। কিন্তু মাঠের মধ্যে আবারও
ভারতের বিপক্ষে আম্পায়ারের বিমাতাসুলভ আচরণের শিকার হলো বাংলাদেশ। দুর্দান্ত পারফরমেন্স করা লিটন দাসকে কোনোভাবেই ভারতীয় বোলাররা পরাস্ত করতে পারছিল না। শেষমেশ নেমে এলো তার ওপর বিতর্কিত আম্পায়ারিংয়ের খড়গ।

৪১তম ওভারের শেষ বলে (কুলদীপ যাদবের) এগিয়ে মারতে চেয়েছিলেন লিটন। রিপ্লাইয়ে দেখা গেছে, প্রথম পর্যায়ে পা ঠিক না থাকলেও ধোনি বল স্ট্যাম্পিং করার আগে নিরাপদে পা ছিল লিটন দাসের।

কিন্তু সবাইকে অবাক করে দিয়ে থার্ড আম্পায়ার লিটন দাসকে আউট ঘোষণা করেন। এ নিয়ে সামাজিক মাধ্যম ব্যবহারকারীরা বিস্ময় প্রকাশ করছেন। কারণ, এ ধরনের সিদ্ধান্তের ক্ষেত্রে ধোঁয়াশার সৃষ্টি হলে সাধারণ বেনিফিট অব আউট ব্যাটসম্যানের পক্ষে যায়। কিন্তু থার্ড আম্পায়ার সিদ্ধান্ত দেন বাংলাদেশের বিপক্ষে।

স্ট্যাম্পিংয়ে আউট হওয়া লিটন পক্ষপাতিত্বের শিকার হয়েছেন কি না, সেই প্রশ্ন উঠা একেবারে অবান্তর নয়। মহেন্দ্র সিং ধোনি বিজলী গতিতে স্ট্যাম্পিং করার পর প্রথম বা দ্বিতীয় আম্পায়ার আউটটি দেননি, পাঠানো হয়েছিল তৃতীয় আম্পায়ার রড টাকারের কাছে।

রড টাকারও এক দুইবার দেখে সিদ্ধান্তটি নিতে পারেননি। বার কয়েক জুম করা হয়, আবার টেনে টেনে দেখা হয়। তিনি যেন পরিষ্কারভাবে বুঝতে পারছিলেন না। মনে সংশয় ছিল। ক্রিকেটে ‘বেনিফিট অব ডাউট’ বলে একটা কথা আছে। যদি কোনো আউট পরিষ্কারভাবে বোঝা না যায়, সেক্ষেত্রে সেটা ব্যাটসম্যানের পক্ষে যায়।

এই আইনে অবশ্যই লিটনের পক্ষে সিদ্ধান্তটা আসার কথা ছিল। এই জায়গায় পক্ষপাতিত্বের একটা প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে। তবে আম্পায়ার যে আসলেই দ্বিধাগ্রস্থ ছিলেন, তার মনে সন্দেহ ছিল, সেটা সবাই আন্দাজ করতে পারলেও প্রমাণসাপেক্ষে বলা যায় না। স্বভাবতই তখন চলে আসে আরেকটি হিসেব। সন্দেহ-সংশয় বাদ দিলে ক্রিকেটীয় আইন আসলে এই আউটের ব্যাপারে কি বলে?

আইনের ধারায় গেলে অবশ্য লিটনের এই আউটটি নিয়ে প্রশ্ন তোলার উপায় নেই। ক্রিকেটের আইনের ৩৯তম ধারায় স্ট্যাম্পিং সম্পর্কে বলা হয়েছে, ‘একজন ব্যাটসম্যান আউট হবেন, যদি ক্রিজের বাইরে থাকেন এবং সেটা রান নেয়ার চেষ্টাতে নয়।’

এই আইনের ব্যাখ্যায় ক্রিজের বাইরে থাকা সম্পর্কে বলা আছে, ‘ব্যাটসম্যানের শরীর বা তার ব্যাটের কোনো অংশ ক্রিজের মধ্যে মাটিতে স্পর্শ না করা। যদি তার ব্যাট একটুখানিও মাটি থেকে উঁচু হয়ে থাকে, ক্রিজের পেছনে থাকা সত্ত্বেও কিংবা যদি তার পা ক্রিজের লাইনের মধ্যে থাকে, কিন্তু সেটা পুরোপুরি লাইন ক্রস না করে এবং পেছনের মাটি স্পর্শ না করে, তবে তিনি আউট হবেন।’

এই আইন অনুযায়ী, লিটন দাস অবশ্যই আউট ছিলেন। তবে তৃতীয় আম্পায়ার বারবার জুম করে আউটটা দেখার চেষ্টা করাতেই অন্য বিতর্কটা তৈরি হয়েছে-সন্দেহ থাকলে তো সেটা ব্যাটসম্যানের পক্ষেই যাওয়ার কথা!

আরও পড়ুন

হ্যাটট্রিক করে বিশ্বকাপের মিশন শুরু করলেন মেসি। দেখুন আজকের ম্যাচে মেসির হ্যাটট্রিকের ভিডিও

হ্যাটট্রিক করলো চেলসি

Syed Hasibul

হোটেলে সমর্থকের সঙ্গে আসলে কী হয়েছিল সাকিবের?

Syed Hasibul