Notunshokal.com
খেলাধুলা

নিষেধাজ্ঞা শেষে মাঠে নেমেই আশরাফুলের দূর্দান্ত ফিফটি রানের ইনিংস

১৩ আগস্ট শেষ হচ্ছে তার পাঁচ বছরের নিষেধাজ্ঞা। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরতে আর কোনো বাধা রইল না তার। আবারও জাতীয় দলে এবং বিপিএলে খেলতে কোনো বাধা নেই।২০১৩ সালে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএল) ম্যাচ পাতানো ও স্পট-ফিক্সিংয়ের সঙ্গে জড়িত থাকায় তিনি নিষিদ্ধ হয়েছিলেন পাঁচ বছর।

ফের জাতীয় দলের হয়ে মাঠে নামতে মরিয়া মোহাম্মদ আশরাফুল। সেই যাত্রায় একধাপ এগিয়ে গেলেন তিনি। ঠাঁই পেলেন বাংলাদেশ ‘এ’ দলে। বিসিবি হাইপারফরম্যান্স ইউনিট-এইচপির বিপক্ষে ‘এ’ দলের হয়ে খেলবেন টেস্ট ক্রিকেট ইতিহাসের সর্বকনিষ্ঠ সেঞ্চুরিয়ান।

গত মৌসুমে ঢাকা প্রিমিয়ার ক্রিকেট লিগে পাঁচটি সেঞ্চুরি করেছিলেন আশরাফুল। ঘরোয়া ক্রিকেটে এই কৃতিত্ব নেই আর কারোর। গত মৌসুমে আশরাফুলের পাঁচ সেঞ্চুরির পর অনেকেই তার জাতীয় দলে ফেরার ব্যাপারে আশাবাদী হয়েছেন।

চলমান জাতীয় ক্রিকেট লীগ (এনসিএল) দিয়ে আবারও নিজেকে প্রমাণ করার সুযোগ এসেছে সদ্যই সবধরণের ক্রিকেট থেকে নিষেধাজ্ঞা উঠে যাওয়া মোহাম্মদ আশরাফুলের। ঢাকা মেট্রোর হয়ে খেলতে নেমে দারুণ একটি অর্ধশতক হাঁকিয়ে সেই লক্ষ্যে কিছুটা এগিয়েও গিয়েছেন তিনি।

সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত এনসিএলের টায়ার ২ এর এই ম্যাচে সিলেট ডিভিশনের মুখোমুখি হয়ে ৫৩ রানের একটি অনবদ্য ইনিংস খেলেছেন আশরাফুল। শাহনুর রহমানের তৃতীয় শিকার হয়ে ফিরলে ইনিংস আর লম্বা করা হয়নি তাঁর। আশরাফুল সাজঘরে ফিরে গেলে তাঁর দলও আর খুব বেশি এগোতে পারেনি। ৪ উইকেটে দিনের খেলা শুরু করা ঢাকা মেট্রো তাদের প্রথম ইনিংস শেষ করেছে ৪২৬ রানে।

ব্যাট হাতে ঝলক দেখানোর পর বল হাতেও শুরুটা দারুণ করেছেন আশরাফুল। ঢাকা মেট্রোর ৪২৬ রানের জবাবে ব্যাটিংয়ে নেমে মাত্র ২৬ রানের মাথায় প্রথম উইকেট হারায় সিলেট ডিভিশন। ওপেনার খন্দকার সায়েম আলম রিজভিকে আরাফাত সানির হাতে ক্যাচ বানিয়ে প্রথম ব্রেক থ্রু এনে দেন আশরাফুল। ফলে এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত সিলেটের স্কোর দাঁড়িয়েছে ১ উইকেটে ২৭ রান। ক্রিজে অপরাজিত আছেন শাহনাজ আহমেদ এবং ইমতিয়াজ হোসেন।

এর আগে ম্যাচটির শুরুতে টসে জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন ঢাকা মেট্রোর অধিনায়ক মার্শাল আইয়ুব। পরবর্তীতে ব্যাটিংয়ে নেমে ওপেনার সাদমান ইসলামের দেড়শ রানের ইনিংসের সুবাদে ৩৩২ রানের বড় পুঁজি পেয়েছিল আশরাফুলের দল। সাদমান ছাড়াও অধিনায়ক মার্শাল আইয়ুবও খেলেছেন ৫০ রানের অনবদ্য একটি ইনিংস। অপরদিকে সৈকত আলি ৪২, মেহরাব হোসেন ৩৮ এবং শামসুর রহমান ৩৪ রান করেন।

সিলেট ডিভিশনের পক্ষে সবথেকে সফল বোলার স্পিনার এনামুল হক জুনিয়র। ৫৩.৪ ওভার বোলিং করে ১৬৫ রান খরচায় একাই ৬ উইকেট শিকার করেন তিনি। এছাড়াও শাহনুর রহমান নিয়েছেন ৭৫ রানে ৩ উইকেট এবং ১টি উইকেট পেয়েছেন আবু জায়েদ রাহি।

ঢাকা মেট্রো একাদশঃ মার্শাল আইয়ুব (অধিনায়ক), মোহাম্মদ আশরাফুল, মেহরাব হোসেন জুনিয়র, শামসুর রহমান, আরাফাত সানি, সৈকত আলি, সাদমান ইসলাম, আসিফ হাসান, আবু হায়দার রনি, মোঃ শহিদুল, কাজি অনিক।

সিলেট একাদশঃ ইমতিয়াজ হোসেন তান্না (অধিনায়ক), জাকির হাসান, অলক কাপালি, শাহনাজ আহমেদ, খন্দকার সায়েম আলম রিজভি, এনামুল হক জুনিয়র, খন্দকার রাজিন সালেহ আলম, শাহনুর রহমান, আবু জায়েদ চৌধুরি রাহি, সৈয়দ খালেদ আহমেদ, এবাদত হোসেন।

আরও পড়ুন

হ্যাটট্রিক করে বিশ্বকাপের মিশন শুরু করলেন মেসি। দেখুন আজকের ম্যাচে মেসির হ্যাটট্রিকের ভিডিও

হ্যাটট্রিক করলো চেলসি

Syed Hasibul

হোটেলে সমর্থকের সঙ্গে আসলে কী হয়েছিল সাকিবের?

Syed Hasibul