খেলাধুলা

চাপ নিতে হবে মুস্তাফিজ-মিরাজকে

স্পোর্টস ডেস্ক: জিম্বাবুয়ের সঙ্গে ঘরের মাঠে আসন্ন সিরিজে টাইগারদের প্রধান সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে সিনিয়র ক্রিকেটারদের ইনজুরি। ইনজুরির কারণে ওয়ানডে সিরিজের জন্য ঘোষিত ১৫ সদস্যের দলে নেই ওপেনার তামিম ইকবাল ও অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। শুধু ওয়ানডে নয় দলের এই দুই কাণ্ডারিকে পাওয়া যাবে না টেস্ট সিরিজেও। ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা টেস্ট ম্যাচ থেকে দূরে আছেন, সেই হিসেবে দলের পঞ্চপাণ্ডবের তিনজন কে ছাড়াই জিম্বাবুয়ের সঙ্গে টেস্ট লড়তে হবে বাংলাদেশের।

তিন ম্যাচের ওয়ানডে ও দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলতে ইতিমধ্যেই জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট দল গতকাল ঢাকায় এসে পৌঁছেছে। আগামী ২১ অক্টোবর মিরপুরে সিরিজের প্রথম ওয়ানডে। ঘোষিত ১৫ সদস্যের দলে তাই প্রধান অস্ত্র অলরাউন্ডার মেহেদী হাসান মিরাজ ও পেসার মোস্তাফিজুর রহমান। সিনিয়র ক্রিকেটারদের অনুপস্থিতিতে এই দুই উদীয়মান তারকাকেই চাপ নিতে হবে। সাম্প্রতিক পারফরম্যান্সও কথা বলছে তাঁদের হয়ে।

বিসিবির গেম ডেভেলপমেন্ট ম্যানেজার নাজমুল আবেদিন ফাহিম টাইগারদের এই দুই তারকাকে নিয়ে বলেন, আমরা হয়তো বছরে একজন কিংবা দুইজন আন্তর্জাতিক মানের ক্রিকেটার পাই, সুতরাং পাঁচ বছরে আমরা চার কিংবা পাঁচ জন খেলোয়াড়ের বদলী পাব যারা আন্তর্জাতিক মানের হবে। আমরা মিরাজ এবং মুস্তাফিজের মাঝে এমনই সম্ভাবনা দেখছি। তাঁর কথায় স্পষ্ট সাকিব,তামিম,মাশরাফি পরবর্তী বাংলাদেশ দলের মূল স্পট থাকবে এই দুই তরুণের ওপর। সিনিয়রদের অবর্তমানে যার শুরুটা এই জিম্বাবুয়ে সফর থেকেই পরিগণিত হবে।

২০১৫ সালের জুনে ভারতের বিপক্ষে অভিষেক সিরিজেই রেকর্ড করেছিলেন মুস্তাফিজ। এখন পর্যন্ত খেলা ৩৫ ওয়ানডেতে ১৯.৭৮ গড়ে নিয়েছেন ৬৬ উইকেট। সর্বশেষ এশিয়া কাপে ছিলেন দুর্দান্ত। পাঁচ ম্যাচে নিয়েছেন ১০ উইকেট। জিম্বাবুয়ের সঙ্গে ৫ ম্যাচ খেলে ১২ উইকেট নিয়েছেন কাটার মাস্টার।

২০১৭ সালে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ওয়ানডে অভিষেক হওয়া মেহেদী হাসান মিরাজ দলের এখন অপরিহার্য সদস্য। ১৭ ওয়ানডে খেলে ১৪ উইকেট শিকারের পাশাপাশি আছে ২০১ রান। জাতীয় দলে বোলিং অলরাউন্ডার হিসেবে নিজেকে পরিচিত করেলেও অনূর্ধ্ব ১৯ ক্রিকেটে ছিলেন জাত ব্যাটসম্যানও। ব্যাট হাতে ধীরে ধীরে সেই প্রতিভাও জানান দিচ্ছেন। এশিয়া কাপের ফাইনালে ভারতের বিপক্ষে লিটন দাসের সঙ্গে ওপেনিং করে ১২০ রানের অনবদ্য জুটি তাঁর প্রমাণ। সেই ম্যাচে ৩২ ও সুপার ফোরে ভারতের বিপক্ষেই ছিল ৪২ রানের ইনিংস। বল হাতে মিতব্যয়ী হয়ে ৬ ম্যাচে ৪ উইকেট শিকার করেছিলেন। এই সিরিজে সাকিব আল হাসানের বিকল্প হিসেবে নিজেকে প্রমাণের ভালো সুযোগ পাবেন মিরাজ।

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে দলে ফজলে রাব্বীর মতো নতুন মুখের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে আরিফুল,শান্ত,অপুরা নতুনই বলা যায়। সেখানে মাশরাফি,মুশফিক ও রিয়াদের পাশাপাশি মিরাজ ও মুস্তাফিজকেও চাপ নিতে হবে। দায়িত্ব নিয়ে খেলতে হবে।

আগামী ২১ অক্টোবর জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজের প্রথম ম্যাচ। মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে ম্যাচটি শুরু হবে দুপুর ২ টায়।