খেলাধুলা

ড্রাফট থেকে অনেক বেশি শক্তিশালী দল গড়াবেন জয়বর্ধান তাই দলে নিল যাদেরকে

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ বা বিপিএলের আগামী আসরকে সামনে রেখে আটঘাট বেঁধে নামছে আসরের অন্যতম জনপ্রিয় দল খুলনা টাইটান্স। আসরকে সামনে রেখে ইতোমধ্যে দলের কোচ মাহেলা জয়াবর্ধনে বাংলাদেশে পা রেখেছেন।
ব্যাটিং নিয়েই যত দুশ্চিন্তা রিয়াদের

গত আসরে খুলনা টাইটান্সের কোচ মাহেলা জয়াবর্ধেনের সঙ্গে অধিনায়ক ও আইকন ক্রিকেটার মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। ছবি: বিডিক্রিকটাইম
সাবেক এই শ্রীলঙ্কান ক্রিকেটার বৃহস্পতিবার সংবাদমাধ্যমের সাথে কথা বলেন। এ সময় ষষ্ঠ বিপিএল নিয়ে খুলনা অঞ্চলের প্রতিনিধিত্বকারী দলটির বিভিন্ন প্রসঙ্গ উঠে আসে।

প্লেয়ার্স ড্রাফটের আগে প্রতিটি দল চারজন পুরনো খেলোয়াড় ধরে রাখতে পেরেছে। সেই সাথে নতুন দুই জন করে বিদেশি ক্রিকেটারকে দলভুক্ত করার সুযোগ পাচ্ছে। সেই সুযোগের পুরো অংশই ব্যবহার করেছে খুলনা টাইটান্স। জয়াবর্ধনে বলেন, ‘আমরা চারজন খেলোয়াড়কে ধরে রেখেছি। সরাসরি দুইজন বিদেশি খেলোয়াড়কে দলে নিয়েছি। তাদের নিয়েই আমাদের ড্রাফটে যেতে হবে। সেখানে অন্যান্য খেলোয়াড় ও বিকল্প খেলোয়াড় নিতে হবে আমাদের।’

পুরনো খেলোয়াড় ধরে রাখা বা রিটেইনড প্লেয়ারের ক্ষেত্রে দেশি ক্রিকেটারদেরই গুরুত্ব দিয়েছে খুলনা। আর জয়াবর্ধনে জানিয়েছেন, এর কারণ এবারের আসরে একাদশে দেশি খেলোয়াড়দের আধিক্য। ৪১ বছর বয়সী সাবেক এই শ্রীলঙ্কার ক্রিকেটার জানান, ‘এবার যদিও বিদেশি খেলোয়াড়দের ক্ষেত্রে কিছুটা পরিবর্তন এসেছে। সেরা একাদশে চারজন বিদেশি খেলোনো যাবে।

সুতরাং যখন আমরা খেলোয়াড় রিটেইন করি তখন ঘরোয়া খেলোয়াড়দের গুরুত্ব দিয়েই রেখেছি। সাতজন লোকাল প্লেয়ার প্রয়োজন হবে একাদশ সাজাতে। সে কারণেই তিনজন লোকাল খেলোয়াড় আমরা রেখে দিয়েছি।’ নিলাম থেকে আরও কয়েকজন ভালো দেশি ক্রিকেটার কেনার প্রত্যাশা ব্যক্ত করে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের দলের কোচ বলেন, ‘আশা করছি ড্রাফটে আমরা আরো কিছু ভালো লোকাল খেলোয়াড় দলে টানতে পারব।’

জয়াবর্ধনের মতে, বিপিএল বেশ চ্যালেঞ্জিং একটি টুর্নামেন্ট। গত বছর ভালো খেললেও নকআউট পর্বে উঠতে পারেনি খুলনা। বর্তমান চ্যাম্পিয়ন রংপুর রাইডার্সের হয়ে এক ক্রিস গেইলই দুর্দান্ত ব্যাটিং করে ডুবিয়েছিলেন জয়াবর্ধনের শিষ্যদের। সেটি স্মরণ করে তিনি বলেন, ‘আসলে এই টুর্নামেন্টটা সব সময়ই চ্যালেঞ্জিং। গেল বছর আমি মনে করি আমরা ভালো ক্রিকেট খেলেছি। যদিও নকআউট পর্বে খেলা হয়নি। আসলে সেটা সম্ভব হয়নি একটি ম্যাচের জন্য। আর এমন গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে গেইলের ব্যাট যদি হাসে তাহলে কিছু করার থাকে না।’

বিপিএল সবসময়ই চ্যালেঞ্জিং: জয়াবর্ধনে খুলনা টাইটান্সের এবারও যথারীতি তরুণদের নিয়ে দল সাজানোর পরিকল্পনা রয়েছে, যেমনটি ছিল বিপিএলের গত আসরেও। আর এই তারুণ্যেই জয়াবর্ধনে খুঁজে পাচ্ছেন ভালো করার রসদ। নিলাম থেকে আরও ভালো খেলোয়াড় কিনে দল ভারি করার প্রত্যয় শোনা গেল কণ্ঠে। তার ভাষ্য, ‘তরুণ খেলোয়াড়দের নিয়ে আমরা ভালো দল। তাদের নিয়েই এবারও আমরা আশাবাদী। শান্ত ও আরিফুল বাংলাদেশের হয়ে ভালো খেলছে। মাহমুদউল্লাহ টেস্ট দলকে নেতৃত্ব দিতে যাচ্ছে। সব মিলিয়ে আশা করছি ড্রাফটে আমরা শক্তিশালী একটি দল গড়তে পারব এবং বিপিএলে ভালো করতে কঠোর পরিশ্রম করতে পারব।’

বিদেশি খেলোয়াড় দলে ভেড়ানোর ক্ষেত্রে বা একাদশে খেলানোর ক্ষেত্রে এবার আগের চেয়েও বেশি সীমাবদ্ধতা এসেছে। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আসলে বিষয়টা চ্যালেঞ্জিং হতে যাচ্ছে। গেল বছর আমাদের সামনে সুযোগ ছিল যত খুশি বিদেশি খেলোয়াড় দলে ভেড়ানোর। সে কারণে অনেক ফ্র্যাঞ্চাইজি বিদেশি খেলোয়াড়দের কিনে আটকে রেখেছিল। অন্যান্য ফ্র্যাঞ্চাইজিরা যাতে কিনতে না পারে। এবার আটজনের বেশি নেওয়া যাবে না। তাতে করে ড্রাফটে অনেক বিদেশি খেলোয়াড়রা থাকবেন যাদের অন্যরা নিতে পারবে।’

আগামী বছরের শুরুতে অনুষ্ঠিতব্য আসরকে সামনে রেখে এই বছরের অক্টোবরে নিলাম অনুষ্ঠান নিয়ে তিনি বলেন, ‘আসলে জানুয়ারিতে হওয়ায় হয়তো কিছু খেলোয়াড়কে আমরা পাব না। কিছু খেলোয়াড়কে পাব। এটা মেনে নিয়েই খেলতে হবে। আর নির্বাচন তো প্রতিবছর হবে না। আমরাও বিষয়টিকে ইতিবাচক হিসেবে নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছি।’