বিনোদন

স্বামীর পাঠানো তালাকের নোটিশের খবর পান ‘শ্রাবন্তী’

বিনোদন ডেস্ক: গণমাধ্যমে মাধ্যমে আকুতি করেছিলেন ‘আমার সংসারটা বাঁচান’। বাচার সম্ভাবনা কী আছে? যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী তারকা অভিনেত্রী ইপসিতা শবনম শ্রাবন্তী এখন সত্যিই বেশ অসহায়। গত ৭ মে তাঁকে তালাকের নোটিশ পাঠান তাঁর স্বামী মোহাম্মদ খোরশেদ আলম। শ্রাবন্তী দীর্ঘদিন যাবৎ যুক্তরাষ্ট্রপ্রবাসী। সেখানে থাকতেই স্বামীর পাঠানো তালাকের নোটিশের খবর পান। এরপর গত ২৫ জুন দুই মেয়েকে সঙ্গে নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র থেকে দেশে ফেরেন। তাঁদের বড় মেয়ে রাবিয়াহ আলমের বয়স সাত আর ছোট মেয়ে আরিশা আলমের সাড়ে তিন বছর।

১২৪ দিন বাংলাদেশে অবস্থান করার পর গতকাল শুক্রবার ফিরে গেলেন যুক্তরাষ্ট্রে। এ সময় তাঁর সঙ্গে ছিল দুই মেয়ে। অনলাইনে তার সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করলে সংবাদমাধ্যমে কোন কথা বলতে রাজি হননি।

শ্রাবন্তীকে মোহাম্মদ খোরশেদ আলম যে তালাকের নোটিশ পাঠিয়েছিলেন, ঢাকার পারিবারিক আদালতের বিচারক দ্বিতীয় অতিরিক্ত সহকারী জজ ইশরাত জাহান তার স্থগিতাদেশ দিয়েছেন। যদি শ্রাবন্তীর সঙ্গে আর সংসার করতে না চান, তাহলে তাঁর স্বামীকে আবার নতুন করে আইন অনুযায়ী যথাযথভাবে তালাকের নোটিশ পাঠাতে হবে। শ্রাবন্তীর ঘনিষ্ঠজন মারফত জানা যায়, নিউইয়র্কে ফিরে যাওয়ার আগে মোহাম্মদ খোরশেদ আলম তাঁর স্ত্রী কিংবা দুই মেয়ের সঙ্গে কোনো যোগাযোগ করেননি।

শ্রাবন্তী শুধু জানান,‘আমার সব ভালোবাসা আলমের জন্য। আমি অপেক্ষা করব। এখন আমাকে লম্বা পথ পাড়ি দিতে হবে। আমাকে দুই মেয়ের কথা ভাবতে হবে।’

মোহাম্মদ খোরশেদ আলমের যুক্তরাষ্ট্রের গ্রিন কার্ডের ব্যাপারে বলেছেন,‘এই গ্রিন কার্ডকে অকার্যকর করার জন্য আমি কোনো ব্যবস্থা নেব না। আলম আমার সন্তানদের বাবা। যদি কোনো দিন তাঁর ভুল ভাঙে, ও আবার সন্তানদের কাছে ফিরে আসে। সেই দিনটির জন্য আমি অপেক্ষা করব। দেনমোহরের ১০ লাখ টাকা নিয়েও মাথা ব্যথা নেই। স্বামীকেই যদি না পাই, এসব দিয়ে কী করব?’

তবে যতদূর শোনা গেছে শ্রাবন্তীর অর্থনৈতিক অবস্থা ভালো নেই। স্বামী যদি যোগাযোগ না করে। দুই মেয়ের ভরনপোষণের জন্য চাকরি খুঁজতে হবে তাকে।বাংলা ইনসাইডার