জাতীয়

ভোটের আগে পুলিশকে যেসব নির্দেশ দিলেন সিইসি

আসন্ন একাদশ জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে ৩০ ডিসেম্বর। এ নির্বাচনে যাতে জনগণ কেন্দ্রে গিয়ে তাদের ভোট দিতে পারেন তা নিশ্চিত করার জন্য প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে. এম. নূরুল হুদা পুলিশ প্রশাসনের প্রতি নির্দেশ দিয়েছেন। আর এ বিষয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে বিবিসি বাংলা।

প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশে ৩০ ডিসেম্বর সংসদ নির্বাচনের আগে পুলিশের ভূমিকা নিয়ে বিরোধীদলের সমালোচনার মুখে প্রধান নির্বাচন কমিশনার এই প্রথম পুলিশ বিভাগের শীর্ষ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের মুখোমুখি হলেন।

এই বৈঠকে নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে পুলিশ কর্মকর্তাদের প্রতি যেসব নির্দেশ দেয়া হয়েছে, সে সম্পর্কে নির্বাচন কমিশনের সচিব হেলাল উদ্দিন আহমেদ জানান:

১. ভোটকেন্দ্র এবং ভোটারদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে।

২. তফসিল ঘোষণার পর কাউকে বিনা ওয়ারেন্টে গ্রেফতার করা যাবে না। মামলা করা যাবে না।

৩. কাউকে হয়রানিমূলক মামলা বা গ্রেফতার করা যাবে না।

৪. সন্ত্রাসীদের তালিকা করতে হবে। অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার করতে হবে। যাদের কাছে বৈধ অস্ত্র আছে, তারাও নির্বাচনের সময়ে সেগুলো প্রদর্শন করতে পারবে না।

৫. সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষা করতে হবে এবং সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তা বিধান করতে হবে।

৬. রিটার্নিং অফিসার এবং সহকারী রিটার্নিং অফিসারদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে।

৭. নির্বাচনে সব দলের জন্য সমান সুযোগ বা ‘লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড’ তৈরির স্বার্থে অবৈধ ব্যানার, পোস্টার, তোরণ ইত্যাদি অপসারণ করতে হবে।

৮. যেসব নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নির্বাচনী দায়িত্ব পালন করবেন, তাদের পুলিশ দিয়ে সহযোগিতা করতে হবে।

আরও পড়ুন

হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত, অল্পের জন্য প্রাণে বাঁচলেন ফরিদুর রেজা সাগর-ব্রাউনিয়া

Sheikh Anik

হাজী সেলিম নৌকার টিকেট পেয়ে বাকশক্তি ফিরে পেলেন

Syed Hasibul

হঠাৎ কেঁপে উঠলো রাজধানীসহ গোটা দেশ

Syed Hasibul