Uncategorized

ইসি যে সিদ্ধান্ত দিল খালেদা জিয়ার মনোনয়ন বিষয়ে

খালেদা জিয়ার তিন মনোনয়নপত্র বাতিল ঘোষণা করা হয়েছে। মনোনয়ন বাতিলের পক্ষে ছিলেন সিইসিসহ চার কমিশনার, বিপক্ষে ছিলেন মাহবুব তালুকদার।

শনিবার (৮ ডিসেম্বর) বিকালে আপিল শুনানির পর নির্বাচন কমিশন (ইসি) এ সিদ্ধান্তের কথা জানায়।

ফলে বিএনপি’র চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে পারবেন না। তার পক্ষে দাখিল করা তিনটি আসনের মনোনয়নপত্রই বাতিল ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। সংখ্যাগরিষ্ঠের মতামতের ভিত্তিতে তার প্রার্থিতা বাতিলের এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইসি।

দলের পক্ষ থেকে তিনটি আসনে তার মনোনয়নপত্র দাখিল করা হয়েছিল। ইসির এ সিদ্ধান্তের পর চূড়ান্তভাবে নির্বাচন থেকে ছিটকে পড়লেন তিনি।

এর আগে তিন আসনেই বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মনোনয়ন স্থগিত করেছে নির্বাচন কমিশন। রিটার্নিং কর্মকর্তার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে বিএনপি চেয়ারপাসন বেগম খালেদা জিয়ার করা আপিলে প্রার্থিতা ফিরে পাওয়া বিষয়টি স্থগিত করে বিকেলে সিদ্ধান্ত দেয়ার কথা জানায়।

শনিবার (৮ ডিসেম্বর) সকালে আপিল শুনানির পর নির্বাচন কমিশন (ইসি) এ সিদ্ধান্তের কথা জানায়।

খালেদা জিয়া কারাগারে থাকায় আপিল আবেদনের শুনানিতে অংশ নিতে পারেন নি। তবে তার আইনজীবীরা শুনানিতে অংশ নেন। নির্বাচন কমিশন স্বচ্ছ মনোভাব দেখালে প্রার্থিতা ফিরে পাবেন খালেদা জিয়া এমনটা আশা করছেন তার আইনজীবীরা।

খালেদা জিয়ার পক্ষ থেকে ফেনী-১ এবং বগুড়া-৬ ও ৭ আসন থেকে দলীয় মনোনয়ন ফরম জমা হয়। তবে তিনি দণ্ডিত হওয়ায় রিটার্নিং কর্মকর্তারা তার মনোনয়নপত্র বাতিল বলে ঘোষণা করেন। গত ৫ ডিসেম্বর খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা তার পক্ষে রিটার্নিং কর্মকর্তাদের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে ইসিতে আপিল আবেদন করেন।

তফসিল অনুযায়ী, আগামী ৯ ডিসেম্বর মনোনয়ন প্রত্যাহারের শেষ দিন এবং ১০ ডিসেম্বর প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হবে। আর ভোটগ্রহণ ৩০ ডিসেম্বর।

আরও পড়ুন

স্যালুট প্রবাসী বাঙালিদেরও -মাশরাফি

Syed Hasibul

সৈয়দ আশরাফ,প্রার্থীদের মধ্যে সবচেয়ে ‘গরিব’

Syed Hasibul

সিরিজ শুরু আগে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে একটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ দল