খেলাধুলা

ম্যাচের মধ্যে কোন রাজনীতি নয়

মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের প্রথমটি তে ৫ উইকেটে জয়লাভ করেছে বাংলাদেশ দল। বাংলাদেশের বিপক্ষে টসে জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে ৯ উইকেটে ১৯৫ রান সংগ্রহ করে ওয়েস্ট ইন্ডিজ দল।জবাবে ব্যাট করতে নেমে ৫ উইকেট হারিয়ে জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় বাংলাদেশ দল। বল হাতে ১০ ওভারে ৩ উইকেট নিয়ে ম্যাচ সেরা হন মাশরাফি।

শুরুতেই বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা স্পিন বল দিয়ে দুপাশ থেকে বোলিং শুরু করেন। দলীয় অষ্টম ওভারে বাংলাদেশ দলকে উইকেট এনে দেন সাকিব আল হাসান। দলীয় ২৯ রানের মাথায় কিয়েরন পাওয়েলকে আউট করেন সাকিব। দলীয় ৬৫ রানের মাথায় বাংলাদেশকে ব্রেক-থ্রু এনে দেন অধিনায়ক মাশরাফি।

তামিম ইকবালের দুর্দান্ত ক্যাচে ড্যারেন ব্রাভোকে ১৯ রানে আউট করেন মাশরাফি। তবে বাংলাদেশের গলার কাঁটা হয়ে ওঠেন শাই হোপ। অবশেষে তাকে প্যাভিলিয়নে ফেরেন অধিনায়ক মাশরাফি। ৪৩ রান করে আউট হন তিনি। বাংলাদেশকে দ্রুতই উইকেট এনে দেন মেহেদী হাসান মিরাজ। টেস্ট সিরিজের পর এবার ওয়ানডে সিরিজেও শিমরন হ্যাটমির উইকেট তুলে নেন মিরাজ।

দলীয় ৯৩ রানের মাথায় শিমরন হ্যাটমিরকে ৬ রানে বোল্ড আউট করেন মিরাজ। বাংলাদেশ দলকে পরপর দুটি উইকেট তুলে দেন অধিনায়ক মাশরাফি এবং রুবেল হোসেন। ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের অধিনায়ক রবমান পাওয়েলকে (১৪) মাশরাফি এবং মারলন স্যামুয়েলসকে (২৫) আউট করেন রুবেল হোসেন।

এরপর দারুন একটি পার্টনারশিপ গড়ে তোলেন রস্টন চেজ এবং কেমো পল। দলীয় ১৭৮ রানের মাথায় রস্টন চেজকে আউট করেন মোস্তাফিজুর রহমান। কিন্তু শেষের দিকে কেমো পল তান্ডবে ২০০ রানের পথে হাটে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ইনিংসের শেষ ওভারে বোলিং কারিশমা দেখান মুস্তাফিজ। মোস্তাফিজের বলে ৩৬ রানে অাউট হন পল। একই ওভারে দেবেন্দ্র বিশু আউট করে মোস্তাফিজ।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের দেওয়া ১৯৬ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই বিপদে পড়ে বাংলাদেশে। ওপেনার তামিম ইকবাল এবং ইমরুল কায়েসকে দ্রুতই হারিয়ে ফেলে টাইগার রা। দলীয় ৩৭ রানের মাথায় তামিম (১২) এবং ৪২ রানের মাথায় ইমরুল কায়েস (৪) আউট হন। নতুন ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিম কে সাথে নিয়ে ভালোই এগিয়ে যাচ্ছিলেন লিটন দাস।

দলীয় ৮৯ রানের মাথায় ৪১ রান করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন লিটন দাস। এরপরই ৫১ রানের পার্টনারশিপ গড়ে তোলেন মুশফিকুর রহিম এবং সাকিব আল হাসান। দলীয় ১৪৬ রানের মাথায় ২৬ বলে ৩০ রান করে আউট হন সাকিব। ব্যাটিংয়ে নেমে কিছুটা ঝড় তুলে ১৩ বলে ১৯ রান করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন সৌম্য। বাকিটা করেন মুশফিকুর রহিম এবং মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। ক্যারিয়ারের ৩১ তম হাফ সেঞ্চুরি তুলে নিয়ে বাংলাদেশের জয় নিশ্চিত করেন মুশফিক। মুশফিকুর ৫৫ এবং মাহমুদুল্লাহ ১৪ রানে অপরাজিত থাকেন।