খেলাধুলা

শ্রীলঙ্কা ফাইনালে বাংলাদেশকে হারিয়ে

ইমার্জিং এশিয়া কাপের দ্বিতীয় সেমিফাইনালে আজ মাঠে নেমেছে বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কা। আর এই ম্যাচে টস জিতে প্রথমে বাংলাদেশকে ব্যাটিংয়ে পাঠায় লঙ্কান অধিনায়ক। জবাবে ব্যাট করতে নেমে ইয়াসির, মিজানুর, মোসাদ্দেকের ব্যাটে ২৩৭ রান করতে সক্ষম হয় টাইগাররা।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভালো করতে পারে নি শ্রীলঙ্কা। শ্রীলঙ্কার শিবিরে শুরুতেই আঘাত করেন শফিউল। হাসিথা বায়োগোডাকে লেগ বিফোরের ফাঁদে ফেলে তাকে সাঝঘরে পাঠান তিনি। রানের খাতা না খুলেই ফেরেন তিনি।

এরপর ৭ রান করে ইয়াসির আলির হাতে তালুবন্ধি হয়ে ফেরেন আভিশকা ফার্নান্দো। তাকে সাঝঘরে পাঠান নাঈম হাসান। অন্যদিকে দুর্দান্ত খেলতে থাকা শাদুন ওয়াকারকোডিকে সাঝঘরে পাঠান আফিফ। ৪৭ রানে উইকেটরক্ষক সোহানের হাতে তালুবন্ধি হয়ে ফেরেন তিনি।

এরপর ১৮ রান করে সাঝঘরে ফেরেন লঙ্কান অধিনায়ক শাম্মু আশান। মোসাদ্দেকের হাতে তালুবন্ধি হয়ে ফেরেন তিনি। তাকে সাঝঘরে পাঠান শরিফুল। তবে পঞ্চম উইকেট জুটিতে ওপ্রতিরোধ্য করে তুলেছিল শেহান জয়াসুরিয়া ও কামিন্দু মেন্ডিস।

অবশেষে ফিল্ডিংয়ে বাধ শেষে জয়াসুরিয়ার আউটে জুটিটি ভেঙ্গেছে। ৩৯ রানে ফেরেন তিনি। তবে এরপর মেন্ডিসের সঙ্গে দলের হাল ধরেন আশেলা গুনারত্নে। মেন্ডিস ও গুনারত্নের দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে জয়ের দিকে এগিয়ে যেতে থাকে শ্রীলঙ্কা। সেখান থেকে বাংলাদেশ দলকে ব্রেক থ্রু এনে দেন শরিফুল।

গুনারত্নেকে সাঝঘরে ফেরান তিনি। ২৪ রান করে ফেরেন তিনি। তবে গুনারত্নের অপরাজিত ৯১ ও করুনারত্নের অপরাজিত ৯ রানে ভর করে জয় তুলে নেয় শ্রীলঙ্কা। বাংলাদেশকে ৪ উইকেটে হারিয়ে ফাইনালে উঠে গেল শ্রীলঙ্কা।

বাংলাদেশ ইমার্জিং একাদশঃ নুরুল হাসান সোহান (অধিনায়ক ও উইকেটরক্ষক), মিজানুর রহমান, জাকির হাসান, নাজমুল হোসেন শান্ত, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, নাইম হাসান, ইয়াসির আলি, আফিফ হোসেন, শরিফুল ইসলাম, তানভির ইসলাম, শফিউল ইসলাম।

শ্রীলঙ্কা ইমার্জিং একাদশঃ শাম্মু আশান (অধিয়ানায়ক), কামিন্দু মেন্ডিস, শেহান জয়সুরিয়া, আভিশকা ফার্নান্দো, হাসিথা বায়োগোডা, শাদুন ওয়াকারকোডি (উইকেটরক্ষক), আসিলা গুনারত্নে, লাসিথ অ্যাম্বুল্ডেনিয়া, আসিথা ফার্নান্দো, শেহান মাদুশঙ্কা, ছামিকা করুনারত্নে।