খেলাধুলা

খেলার মাঠে দুর্দান্ত পারফরম্যান্স করেই মাঠে নির্বাচনী প্রচারণায় নামছেন মাশরাফি

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে বছরে শেষ ওয়ানডে ম্যাচে বড় ব্যবধানে জয়লাভ করেছে বাংলাদেশ দল। এবছর এটি বাংলাদেশের সর্বশেষ ওয়ানডে সিরিজ ছিল। আর তাই এই সময়ের মধ্যে দেশের গ্যালারিতে বসে মাশরাফির খেলা দেখতে পারবেন না দেশের ক্রিকেটপ্রেমিরা। আবার অনেকেই বলছেন, ঘরের মাটিতে মাশরাফির শেষ ম্যাচের সাক্ষী হয়ে থাকলো সিলেট।

কারণ, বিশ্বকাপের পর জাতীয় দল থেকে অবসরে যেতে পারেন তিনি। যদিও বিশ্বকাপই শেষ গন্তব্য কিনা সেটা এখনো ঠিক করেননি বলেই জানিয়েছেন মাশরাফি। তার মতে, পরিস্থিতি অনুকূলে এবং শরীর ফিট থাকলে খেলা চালিয়েও যেতে পারেন তিনি। তবে আপাতত তার লক্ষ্য জাতীয় নির্বাচন। নড়াইল-২ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী তিনি।

প্রতীক পাওয়ার পর প্রার্থীরা নিজ নিজ এলাকায় প্রচারণা শুরু করলেও উইন্ডিজ সিরিজ নিয়ে ব্যস্ত ছিলেন ম্যাশ। টি-২০তে না থাকায় ক্রিকেট থেকে আপাতত তার ছুটি। এখন তিনি যাবেন তার নির্বাচনী এলাকা নড়াইলে। মাশরাফির বাবা গোলাম মুর্তজা স্বপন জানিয়েছেন, আগামী ১৭ ডিসেম্বর নড়াইলে যাবেন ম্যাশ।

এরপর নির্বাচনী প্রচারণায় যোগ দিবেন। যদিও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী এবং তার পরিবার ও স্বজনরা আগে থেকেই প্রচারণা চালাচ্ছেন। নৌকার মনোনয়ন কেনার পর থেকেই অনেকের কাছেই সমালোচিত হন মাশরাফি। জাতীয় দলে খেলা চালিয়ে যাওয়া অবস্থায় তার নির্বাচন করার সিদ্ধান্ত অনেকেই ভালোভাবে নিতে পারেননি।

সমালোচনার চাপ নিয়েই উইন্ডিজের বিপক্ষে মাঠে নেমেছিলেন। তবে সে চাপটা বেশ ভালোভাবেই সামলেছেন। ২-১ ব্যবধানে সিরিজ জিতেছেন। দলকে নেতৃত্ব দিয়েছেন সামনে থেকে। সিরিজের প্রথম ম্যাচে বল হাতে ১০ ওভারে ৩০ রান দিয়ে তুলে নেন ৩ উইকেট। হন ম্যাচসেরা। সিলেটে সিরিজ নির্ধারণী ম্যাচেও সময়মতো ব্রেকথ্রু এনে দিয়েছেন। ৯ ওভারে ৩৪ রান খরচায় তুলে নিয়েছেন ২ উইকেট।

সিরিজে মেহেদী মিরাজের সঙ্গে যৌথভাবে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি তিনিই। মোট ২৯ ওভার বল করে ৪ ইকোনোমি রেটে দিয়েছেন ১১৬ রান। তুলে নিয়েছেন ৬ উইকেট। আপাতত মাশরাফির ভাবনায় শুধু নির্বাচন। ভোটের পর বিপিএলে রংপুর রাইডার্সকে নেতৃত্ব দেবেন। তারপর নিউজিল্যান্ড, আয়ারল্যান্ড সফর পর ইংল্যান্ড যাবেন বিশ্বকাপ খেলতে।