খেলাধুলা

যে বিশ্বরেকর্ড করে উইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজ জিতল বাংলাদেশ

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃউইন্ডিজ-১৯৮/৯ (৫০ ওভার)  (হোপ-১০৮*), (মিরাজ ২৯/৪)  বাংলাদেশ- ২০২/২ (৩৮.৩ ওভার) (মুশফিক ১৬*, তামিম ৮১*)।বাংলাদেশ ৮ উইকেটে জয় লাভ করে।

সিলেটে বাংলাদেশকে সিরিজ জয়ের জন্য ১৯৯ রানের লক্ষ্য ছুঁড়ে দিয়েছে সফরকারী উইন্ডিজ দল। এদিন প্রথমে ব্যাট করে শেই হোপের সেঞ্চুরিতে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৯ উইকেট হারিয়ে ১৯৮ রানের পুঁজি পায় ক্যারিবিয়রা। বাংলাদেশের পক্ষে মেহেদি হাসান মিরাজ নেন ২৯ রান দিয়ে ৪ উইকেট।

মিরপুরে ১৪৬ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলার পর সিলেটে সেই ফর্ম নিয়েই মাঠে নেমেছিলেন হোপ। ইনিংসের শুরু থেকেই বাংলাদেশী বোলারদের বিপক্ষে দেখে শুনে খেলেছেন, দলের বাকি ব্যাটসম্যানরা আসা যাওয়ার মধ্যে থাকলেও একপ্রান্তে থিতু হয়ে ব্যাট করে ১২১ বলে ক্যারিয়ারের চতুর্থ সেঞ্চুরি তুলে নেন এই ওপেনার।

বাংলাদেশের পক্ষে বল হাতে দারুণ পারফর্ম করেছেন মেহেদি হাসান মিরাজ। ২৯ রান দিয়ে নিয়েছেন ৪ উইকেট। উইন্ডিজ মিডেল অর্ডার-টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানদের একাই সাজঘরে ফিরিয়েছেন এই স্পিনার।

তাণ্ডব দেখিয়ে ফিরলেন সৌম্যঃ- ৮১ বলে পাঁচটি চার ও পাঁচটি বিশাল ছক্কায় ৮০ রান করে কিমো পলের বলে বোল্ড হয়ে ফিরেছেন সৌম্য সরকার। অসাধারণ ইনিংস খেলে তামিমের সঙ্গে ১৩১ রানের জুটি গড়ে ফিরেছেন তিনি।

সৌম্যের ফিফটিঃ- ৬২ বলে তিনটি চার ও দুটি ছয়ে নিজের আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারের সপ্তম ফিফটি তুলে নিয়েছেন সৌম্য সরকার। সঙ্গী তামিমকে নিয়ে লক্ষ্যের দিকে আস্তে আস্তে এগিয়ে যাচ্ছেন তিনি।

তামিমের ফিফটিঃ লিটন ফিরলেও সৌম্যকে সঙ্গে নিয়ে হাল ধরেন তামিম। দুজন দেখে শুনে জুটি গড়ে দলকে একশ রানের পুঁজি এনে দেন। সেই সঙ্গে তামিম ইকবাল তুলে নেন চলতি সিরিজে নিজের দ্বিতীয় ফিফটি। দেবেন্দ্র বিশুকে লেগ সাইডে সুইপ করে ফিফটি পূরণ করেন এই ওপেনার।

লিটন সাজঘরেঃ

তামিম ইকবাল এবং লিটন দাসের ব্যাটে শুরুটা ভালোই করেছিল বাংলাদেশ। প্রথম ১০ ওভারে সাড়ে চার রান রেটে স্কোরবোর্ডে রান যোগ করেছিল বাংলাদেশ। কিন্তু ১১তম ওভারে কিমো পলের প্রথম বলে লাইনের বিপরিতে খেলতে গিয়ে মিড অন অঞ্চলে ক্যাচ দিয়ে বসেন লিটন। ২৩ রান আসে তাঁর ব্যাট থেকে।

লিটন-তামিমের জুটিঃ

১৯৯ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমেছে বাংলাদেশ দল। দুই ওপেনার লিটন দাস এবং তামিম ইকবাল দেখে শুনেই ইনিংসের শুরুটা করেছেন। দুই ব্যাটসম্যানই উইন্ডিজ বোলারদের বিপক্ষে সতর্ক হয়ে ব্যাট করছেন।

বাংলাদেশ একাদশঃ

তামিম ইকবাল, লিটন কুমার দাস, সৌম্য সরকার, মুশফিকুর রহিম (উইকেটরক্ষক), সাকিব আল হাসান, মোহাম্মদ মিঠুন, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন, মেহেদি হাসান মিরাজ, মাশরাফি বিন মর্তুজা (অধিনায়ক), মুস্তাফিজুর রহমান।

উইন্ডিজ একাদশঃ

চন্দরপল হেমরাজ, শাই হোপ, (উইকেটরক্ষক), ড্যারেন ব্রাভো, মারলন স্যামুয়েলস, শিমরন হেটমায়ার, রোভম্যান পাওয়েল (অধিনায়ক), রস্টন চেজ, ফাবিয়ান অ্যালেন, কিমো পল, দেবেন্দ্র বিশু, কিমার রোচ।