খেলাধুলা

২০১৮ সালে ওয়ানডেতে রেকর্ড গড়ল বাংলাদেশ

২০১৮ সালটা বাংলাদেশের ক্রিকেটের জন্য বেশ উজ্জলই বলা চলে। নিদাহাস ট্রফি ও এশিয়া কাপের ফাইনাল বাদে ওয়ানডে ফরম্যাটে দারুণ কিছু সাফল্য পেয়েছে টাইগাররা।

সিলেটে আজ শুক্রবার ওয়েস্ট ইন্ডিজকে সিরিজ নির্ধারণী ম্যাচে ৮ উইকেটের ব্যবধানে হারিয়ে ২-১ ব্যবধানে সিরিজ জিতে নিয়েছে টাইগাররা।

এই ম্যাচে জয়ের মধ্য দিয়ে এক বছরে সবচেয়ে বেশি (২০টি) ওয়ানডে জয়ের রেকর্ড গড়ল টাইগাররা। চলতি বছরে এ নিয়ে ৪১টি ম্যাচ খেলে ২০টিতে জয় পায় বাংলাদেশ। এর আগে ২০০৬ সালে ৩৩ ম্যাচে ১৯টিতে জয় পেয়েছিল টাইগাররা।

এদিকে মিরাজ ম্যাচ সেরা হলেও সিরিজ সেরা হয়েছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের ব্যাটসম্যান সাই হোপ। টানা দুটি সেঞ্চুরি করেছেন তিনি। ঢাকায় দ্বিতীয় ওয়ানডেতে ছিলেন ১৪৬ রানে অপরাজিত। দলকে জিতিয়েই মাঠ ছেড়েছিলেন তিনি। সিলেটেও করলেন সেঞ্চুরি এবং এখানেও থাকলেন অপরাজিত। তার উইকেট নেয়ারই যেন কোনো বোলার নেই বাংলাদেশ দলে। প্রথম ওয়ানডেতেও করেছিলেন ৪৩ রান।

সব মিলিয়ে তাই সিরিজের সেরার পুরস্কারটি তুলে দেয়া হলো ওয়েস্ট ইন্ডিজের সফল এই ব্যাটসম্যানের হাতে।

উল্লেখ্য, ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দূর্দান্ত একটি জয় পেল বাংলাদেশ। তার সাথে সিরিজও নিশ্চিত করল টাইগাররা। সিরিজের শেষ ম্যাচে ৬৯ বল ও ৮ উইকেট হাতে রেখে ক্যারবীয়দের উড়িয়ে দিয়েছে টাইগাররা।

সিরিজ নির্ধারণী এই ম্যাচে ব্যাট হাতে উজ্জল ছিলেন তামিম-সৌম্য। তামিম ৮১ রানে অপরাজিত ও সৌম্য ৮০ রান করে আউট হয়েছেন। এছাড়া বল হাতে বেশ উজ্জল ছিলেন মিরাজ। ক্যারিয়ার সেরা বোলিং করে ১০ ওভারে ২৯ রান খরচে ৪ উইকেট নিয়েছেন তিনি।

ম্যাচ সেরার পুরুষ্কারের দৌড়ে এগিয়েছিলেন তামিম ও সৌম্য। কিন্তু তাদেরকে হারিয়ে ম্যাচ সেরার পুরুষ্কারটা নিজের করে নিয়েছেন মিরাজ। এসময় তিনি দলের সকলের প্রশংসাও করেছেন।

মিরাজের ক্যারিয়ারের সেরা বোলিং ফিগার: স্যামুয়েলস ফিরে যাওয়ার পর বল হাতে জোড়া আঘাত হানেন মেহেদি হাসান মিরাজ। শেমরন হেটমায়ারকে ০ রানে লেগ বিফরের ফাঁদে ফেলে চলতি সিরিজে এই নিয়ে তাঁকে ষষ্ঠ বারের মতো সাজঘরে ফেরত পাঠান মিরাজ।

এর এক ওভার পর নিজের শেষ ওভারে বোলিংয়ে এসে উইন্ডিজ দলপতি রভম্যান পাওয়েলকে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে বিদায় করেন মিরাজ। মোট চার উইকেট নিয়ে উইন্ডিজদের ব্যাকফুটে ঠেলে দেন তিনি। ১০ ওভারে ২৯ রান দিয়ে ১ মেইডেন সহ ডানহাতি স্পিনার মিরাজের শিকার মোট ৪ উইকেট।এটাই তার ক্যারিয়ারের সেরা বোলিং ফিগার।

মাশরাফীর নতুন কীর্তি: ইতোমধ্যে এই ম্যাচে উইন্ডিজদের বিপক্ষে মাঠে নেমে দারুণ কীর্তি গড়লেন মাশরাফি। দেশের হয়ে সবচেয়ে বেশি ৬৯টি ওয়ানডেতে দলের নেতৃত্ব দেন সাবেক অধিনায়ক হাবিবুল বাশার সুমন।এই ম্যাচের আগ পর্যন্ত হাবিবুলের সমান ৬৯টি ওয়ানডেতে দলের নেতৃত্ব দিয়েছেন মাশরাফি বিন মর্তুজা। ইতোমধ্যে এবার উইন্ডিজদের বিপক্ষে মাঠে নেমে হাবিবুলের অধিনায়কত্বের রেকর্ড ছাড়িয়ে গেলেন মাশরাফি।নেতৃত্ব দিলেন ৭০টি ওয়ানডে ম্যাচ।