খেলাধুলা

শেষ ম্যাচে বাজে ভাবে হারল বাংলাদেশ

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ জয় লাভ করতে হলে বাংলাদেশকে করতে হবে ১৯১ রান। শুরুটা ভাল হলেও মাঝের দিকে ব্যাটিং ব্যার্থতায় ১৪০ রানে ১৭ ওভারে অলঅাউট হয় বাংলাদেশ। টসে হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরু থেকেই বিধ্বংসী রূপে ব্যাট করতে থাকেন দুই ওপেনার। এভিন লুইস এবং শাই হোপ এর লাগাম টেনে ধরেন সাকিব আল হাসান। সাকিব আল হাসানের ঘূর্ণিতে বোল্ড হন ১২ বলে ২৩ করা শাই হোপ।

আর মোস্তাফিজুর রহমানের বলে আরিফুল হকের ক্যাচ হয়ে ফিরেন কেমো পল (২)। তবে বড় সংগ্রহের দিকে এগিয়ে যাওয়া ওয়েস্ট ইন্ডিজের লাগাম টেনে ধরেছেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। ইনিংসের দশম ওভারে বল করতে এসে টানা দুই বলে দুই উইকেট নিয়েছেন এই অফস্পিনার।

সবচেয়ে ভয়ংকর ব্যাটসম্যানটিকেই ফিরিয়েছেন মাহমুদউল্লাহ। ২৬ বলে ৬ চার আর ৮ ছক্কায় ৮৯ রান করা এভিন লুইসকে বোল্ড করেন তিনি। পরের বলে এলবিডব্লিউ করে সিমরন হেটমেয়ারকেও (০) সাজঘরের পথ দেখান মাহমুদউল্লাহ। ওয়েস্ট ইন্ডিজের পঞ্চম উইকেট তুলে নেন মাহমুদুল্লাহ। দুর্দান্ত ব্যাটিং করতে থাকা রোভম্যান পাওয়েলকে ১৯ রানে আউট করেন মাহমুদউল্লাহ।

দলীয় ১৭৬ রানের মাথায় নিকোলাস পুরানকে ২৯ রানে আউট করেন মোস্তাফিজুর রহমান। একই ওভারে কার্লোস ব্র্যাথওয়েটকে ৮ রানে আউট করল মুস্তাফিজ। দলীয় ১৯ তম ওভারে আবারও জোড়া উইকেট তুলে নেন সাকিব। দলীয় ১৮৮ রানের মাথায় অষ্টম এবং নবম উইকেট তুলে নেন সাকিব।

৮ রান করা ফ্যাবিয়ান অ্যালেনকে স্টাম্পিং করেন মুশফিকুর রহিম এবং শেরফান রাদারফোর্ড ২ রানে ক্যাচ ধরেন মুশফিক। বাংলাদেশের হয়ে সাকিব-মাহমুদউল্লাহ এবং মোস্তাফিজুর রহমান তিনটি করে উইকেট লাভ করেন।

১৯১ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে দলীয় ২২ রানের মাথায় ৮ রান করে রান অাউট হন তামিম ইকবাল। এরপরে ঝড় তোলেন লিটন। তাতে ৪ ওভারে ৬২ রান তুলে ফেলে বাংলাদেশ।

কিন্তু তার আগে ঘটল আরেক ঘটনা। ইনিংসের চতুর্থ ওভারের পঞ্চম ও শেষ বল নিয়ে মাঠে হয়ে গেল মহা-হাঙ্গামা। আসলে আম্পায়ারই ভুল করেছিলেন। ওশানে থমাসের টানা দুই বলে দুটি নো বল ডাকেন আম্পায়ার। দুটি বলই ছিল দাগ ছোঁয়া অবস্থায়।

এর মধ্যে ওভারের পঞ্চম বলে লিটন দাস আউটও হয়ে যান। কিন্তু আম্পায়ার তো ‘নো’ ডেকে ফেলেছেন, সঙ্গে ফ্রি-হিট। এ নিয়ে প্রতিবাদ জানান ওয়েস্ট ইন্ডিজ অধিনায়ক কার্লোস ব্রেথওয়েট। প্রতিবাদ জানানোরই কথা!

এই ঝামেলায় অনেকটা সময় ম্যাচ বন্ধ থাকে। তবে আম্পায়ার যখন কল দিয়ে ফেলেছেন, ফ্রি হিটটা পেয়েছে বাংলাদেশ। সৌম্য সরকার সেটা থেকে ছক্কাও আদায় করে নেন।

কিন্তু বাংলাদেশের ছন্দটা যেন নষ্ট হয়ে যায় ওই ঘটনার পরই। ফ্যাবিয়েন অ্যালেনের পরের ওভারেই টানা দুই বলে আউট হয়ে যান সৌম্য সরকার (৯) আর সাকিব আল হাসান (০)।

ষষ্ঠ ওভারে মুশফিকুর রহীমও ফেরেন মাত্র ১ রান করে। কেমো পলের বলে অ্যালেনের হাতে ক্যাচ দেন উইকেটরক্ষক এই ব্যাটসম্যান। ৬৬ রানে বাংলাদেশ হারায় ৫টি উইকেট।

মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ শুরুটা ভালোই করেছিলেন। কিন্তু ৯ বলে ২ বাউন্ডারিতে ১১ রান করে তিনিও কেমো পলের শিকার হন। ৮০ রানের মধ্যে ৬ উইকেট হারিয়েছে টাইগাররা। দলীয় ৮৯ রানের মাথায় ২৫ বলে ৪৩ রান করে অাউট হন লিটন। শেষের দিকে মিরাজ এবং রনি কিছুটা প্রতিরোধ গড়ে তোলেন। ১২৯ রানের মাতায় ১৯ রান করে মিরাজ অাউট হন।