রাজনীতি

নির্বাচনে প্রচার চালাতে গিয়ে ভোটারদের বাড়িতে খাবার খেলেন হিরো আলম

আসন্ন একাদশ জাতীয় নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন সময়ের আলোচিত ব্যক্তি হিরো আলম। এবার তিনি বগুড়া-৪ (নন্দীগ্রাম-কাহালু) আসন থেকে প্রার্থী হয়েছে। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে সিংহ প্রতীক নিয়ে লড়বে।

এ আসনে হিরো আলমের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বী করছেন মহাজোটের মনোনীত প্রার্থী বর্তমান সংসদ সদস্য একেএম রেজাউল করিম তানসেন (নৌকা), বিএনপির মনোনীত প্রার্থী মোশারফ হোসেন (ধানের শীষ), ইসলামী আন্দোলনের মোহাম্মদ ইদ্রিস আলী (হাত পাখা), তরিকত ফেডারেশেনের কাজী এমএ কাশেম (ফুলের মালা), ন্যাশনাল পিপলস্ পার্টির আয়ুব আলী (আম) ও বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্টের জীবন রহমান (টেলিভিশন)।

এদিকে, নির্বাচনে প্রচার চালাতে গিয়ে ভোটারদের বাড়িতে খাবার খেলেন তিনি। এ ঘটনার পর থেকে কিছু অতি উৎসাহী ভোটার নিমন্ত্রণ দিচ্ছেন আর বাড়িতে খাবার খাওয়াচ্ছেন হিরো আলমকে।

দেখা গেছে, তার প্রচারণার সময় অনেকেই মোবাইল ফোনে ছবি ও সেলফি ধারণ করছে। আবার তার নির্বাচনী এলাকায় কিশোররা ফেসবুকের প্রচারণা লাভে হিরো আলমের সাঙ্গে ছবি তুলছে।

এদিকে, বগুড়ার নন্দীগ্রাম উপজেলার হাটকড়ই এলাকার হিন্দু সম্প্রদায়ের এক বিধবা বৃদ্ধাকে মা ডেকে আলোচনায় আসেন হিরো আলম। তিনি সেখানেই রাতের ওই বাড়িতে খাবারও খান হিরো আলম। এলাকায় গরীব প্রার্থী হিসেবে তার নাম ভোটারদের মুখে মুখে। যে কারণে প্রচারণায় গিয়ে দুই বেলার খাবার পাচ্ছেন ভোটারদের বাড়িতে। প্রচারণায় হিরো আলম শুধু ভোটারদের ‘চা’ খাওয়াচ্ছেন।

এ বিষয়ে তিনি বলছেন ‘আমি গরিব ঘরের ছেলে, টাকা দিয়ে ভোট করতে আসিনি। আমি গরিব, গরিবরাই আমার সঙ্গে প্রচারণায় রয়েছে। কেউ টাকার জন্য প্রচারণা করছে না, ভালবাসা থেকেই সহযোগিতা করছে সবাই। গরিবের দু:খ পরিবারই বুঝে।’

গত রবিবার রাত ৮টার দিকে উপজেলার হাটকড়ই হিন্দুপাড়ায় গিয়ে হাটকড়ই গ্রামের মৃত অনিল চন্দ্র লকাইয়ের স্ত্রী (বিধবা) লতা রানীর বাড়িতে সিংহ প্রতীকে ভোট চাইতে যান হিরো আলম। এ সময় বিধবা বৃদ্ধাকে ‘মা’ বলে ডাকেন হিরো আলম।

আর এতেই ওই বৃদ্ধা হিরো আলমকে ভাত খাওয়ার নিমন্ত্রণ করে। হিরো আলম মায়ের পাশে বসে ভাত খেয়ে আসেন। আর মুহুর্তের মধ্যে এ খবর ছড়িয়ে পড়ে পুরো এলাকায়। শত শত নারী-পুরুষ ভোটার ছুটে এসে ভিড় করেন ওই বাড়ির উঠানে।

হিরো আলমেক ভাত খাওয়ানোর বিষয়ে বৃদ্ধা লতা রানী জানান, হিরো আলম মা ডাকছে। মায়ের কাজ ছেলেকে ভাত খাওয়ানো।

বিষয়টি নিয়ে হিরো আলম জানান, তিনি গরীব প্রার্থী। এদেশের লাখো গরীব ভাই, বোন ও ভোটাররা তার ভাই। তারা তাকে ভোট দেবেন। তিনি সংসদ সদস্য হলে গরীব মানুষের উন্নয়নে কাজ করবেন।