আন্তর্জাতিক

পৃথিবীর মানচিত্র থেকে ইসরাইলকে মুছে ফেলার হুমকি দিয়েছে ইরানি সেনাবাহিনীর শীর্ষ কমান্ডার

পৃথিবীর মানচিত্র থেকে ইসরাইলকে মুছে ফেলার হুমকি দিয়েছে ইরান। এদিকে সিরিয়ায় ইরানি অবস্থানে হামলার প্রতিক্রিয়ায় ইরানি সেনাবাহিনীর শীর্ষ কমান্ডার বলেছেন, ‘নতুন করে যুদ্ধে জড়ালে, ইসরাইলকে চরম মূল্য দিতে হবে।’ এদিকে, যুদ্ধবিধ্বস্ত সিরিয়ার অবকাঠামো উন্নয়ন ও বাণিজ্য সম্প্রসারণে দামেস্কের সঙ্গে বেশ কয়েকটি চুক্তি সই করেছে তেহরান।

এদিকে গতকাল সোমবার ২৮ জানুয়ারি দুই দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে দামেস্ক পৌঁছান ইরানি ভাইস-প্রেসিডেন্ট ইসহাক জাহাঙ্গিরি। এ সময় সিরিয়া সরকারের শীর্ষ কর্মকর্তারা তাকে স্বাগত জানান। এর আগে গত ২০১১ সালে গৃহযুদ্ধ শুরুর পর প্রথমবারের মতো ইরান সরকারের কোনো শীর্ষ পর্যায়ের নেতা সিরিয়া সফরে গেলেন। রাষ্ট্রীয় অভ্যর্থনা শেষে সিরিয়ার প্রধানমন্ত্রী ইমাদ খামিসের সঙ্গে বৈঠক করেন ইরানি ভাইস প্রেসিডেন্ট।

এ সময় বৈঠকে দুই দেশের মধ্যে পারস্পারিক সহযোগিতা বাড়ানোর বিষয়ে আলোচনা করেন দুই নেতা। সিরিয়ার সঙ্গে বাণিজ্যিক সম্পর্ক জোরদারে বেশ কয়েকটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। সিরিয়ায় স্বাভাবিক পরিস্থিতি ফিরতে শুরু করায় বর্তমানে দেশটির অর্থনৈতিক উন্নয়নকে ইরান গুরুত্ব দিচ্ছে বলে জানান ইসহাক জাহাঙ্গিরি।

এদিকে সিরিয়ায় ইরানি অবস্থানে হামলার চেষ্টা করা হলে, ইসরাইলকে গুঁড়িয়ে দেয়ার হুমকি দিয়েছে তেহরান। ইরানের ইসলামী বিপ্লবী গার্ডের উপ-প্রধান ব্রিগেডিয়ার জেনারেল হোসেইন সালামি বলেন, ‘ইরান বিশ্বের রাজনৈতিক মানচিত্র থেকে দখলদার ও অবৈধ ইসরাইলকে মুছে ফেলার নীতিতে বিশ্বাস করে। পরিস্থিতি দেখে মনে হচ্ছে নানা শয়তানি তৎপরতার মাধ্যমে ইহুদিবাদী ইসরাইল নিশ্চিহ্ন হওয়ার দিকেই এগিয়ে যাচ্ছে।’

এ সময় আইআরজিসি’র উপ-প্রধান আরও বলেছেন, ‘ইসরাইল যদি কোনো নতুন যুদ্ধ শুরু করে তাহলে দখলীকৃত সব ভূখণ্ড উদ্ধার করা হবে এবং তখন ইসরাইলিরা নিজেদের লাশ দাফন করার জন্যও কবরস্থান খুঁজে পাবে না।’

সম্প্রতি ইহুদিবাদী ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু হুমকি দিয়ে বলেছে, ‘ইরান যদি অবিলম্বে সিরিয়া থেকে তার সেনা সরিয়ে না নেয় তাহলে সেখানে ইরানি অবস্থানে হামলা অব্যাহত রাখা হবে।’