খেলাধুলা

৪ ব্যাটিং ৩ বোলার ও ৪ অলারাউন্ডার নিয়ে আফ্রিকার বিপক্ষে বাংলাদেশ দেআে নিন একাদশ

লিটন দাস এখন বর্তমানে দলের অনিয়মিত ওপেনার। আর মিথুন দলের নির্ভরযোগ্য একজন মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান। নির্ভরযোগ্য কেন বললাম সেটা তার বিগতদিনের পারফরমেন্সের হিসেব করলেই অনুমান করতে পারবেন।

যাই হোক কথা বাড়াবো না যেটা বলতে চাচ্ছি।একটা জিনিস দেখছি বেশিরভাগ ক্রিকেট বিশ্লেষকরা লিটনের টানা দুটি ৭০+ ইনিংস দেখে তাকে দলে নিতে চাচ্ছে। লিটনের রানে ফেরা অবশ্যই আমাদের জন্য প্লাস পয়েন্ট তবে ওপেনিং পজিশনে এখন তামিম আর সৌম্য যেভাবে খেলে আসছে, এই মুহূর্তে এসে সৌম্যকে তিনে নামিয়ে লিটনকে দিয়ে ওপেন করানোটা কতটা যৌক্তিক হবে? অথবা লিটনকে তিন নম্বরে খেলানোটাই বা কতটা যৌক্তিক হবে?

সাকিব এই মুহূর্তে বাংলাদেশ দলে তিন নম্বর পজিশনের সবচেয়ে বড় দাবিদার। দ্রুত উইকেট পরে গেলে চাপ সামলানোর মতো সাকিব ছাড়া আর কাউকে দেখছি না। আর পারফরমেন্স এর বিচারেও তিন নম্বর পজিশনে সাকিবের ধারে কাছেও কেউ নেই। তাই কোনো মতেই সাকিবের পজিশন তিন ছাড়া অন্য কোথাও হওয়ার কাম্য না।

যেটা মোস্ট ইম্পরট্যান্ট বিষয় সেটা হলো ওয়ানডেতে ওপেনিং পজিশনের জন্য আমি লিটনকে কোনোমতেই পারফেক্ট বলে আমি করিনা। কারন লিটন নতুন বলের সুইংএ কতটা দূর্বল এটা সবারই জানা। এর সাক্ষাত প্রমাণ আমরা ভারতের সাথে প্রস্তুতি ম্যাচেও পেয়েছি।

এক বুমরার বলেই ৩টা এজ হয়েছে কপাল ভাল থাকাতে স্ট্যাম্প এ লাগেনি। তাছাড়াও প্রথমদিকে সুইং বলগুলো খেলতে লিটনকে হিমশিম খেতে দেখা গেছে। অথচ এই লিটনের ব্যাটিংই আবার যখন বলের সুইং কমতে শুরু করল তখন দেখে মনে হচ্ছিল বেশ পরিক্ষিত কোনো ব্যাটসম্যান এর ব্যাটিং দেখছি, যেনো তাকে আউট করতে পারবে না কেউ।

তাই আমি মনে করি লিটনকে যদি খেলাতেই হয় তাহলে মিথুন এর জায়গায় খেলানো উচিত। কজ তখন বলের সুইং কম থাকবে এবং সহজেই সে ইনিংস বিল্ডাপ করতে পারবে। আর টেস্টে তো লিটন নিচের দিকেই খেলে আসছে এবং সেখানে কিভাবে ব্যাট করে এটা সবারই জানা।

লিটন দাস বিশ্বকাপে কি করবে সেটা বলতে পারছি না। তবে ৩৩০+চেজ করে ম্যাচ জিততে হলে সৌম্য লিটন দুজনকেই লাগবে বলে আমি মনে করি। প্রতিদ্বন্দ্বীতা টা সৌম্য আর লিটনের মধ্যে না হয়ে মিথুন আর লিটনের মধ্যে হওয়া উচিত, যে ক্লিকে থাকবে সেই শুধু একাদশে যায়গা পাবে। তাহলে সেই অনুপাতে আমার একাদশটা হয় এরকম।

১)তামিম ২)সৌম্য ৩)সাকিব ৪)মুশফিক ৫)লিটন/মিথুন ৬)মাহমুদুল্লাহ ৭)সাব্বির/মোসাদ্দেক ৮)সাইফুদ্দিন/মিরাজ ৯)মাশরাফি ১০)রুবেল ১১)মুস্তাফিজ

জানি আমরা যেভাবে ভাবি হয়তো টিম ম্যানেজমেন্ট এভাবে ভাবেনা। তবে ওয়ার্ল্ডকাপ একাদশটা এরকম হলে আর রুবেল মুস্তাফিজ এরা ফর্ম ধরে রাখতে পারলে আমরা যেকোনো দলকেই চ্যালেন্জ ছুড়তে পারবো। শুভকামনা বাংলাদেশ।