ধর্ম

কোরবানির গোশত তিন দিনেরও অধিক জমিয়ে রেখে খাওয়া যাবে কি?

কোরবানির গোশত তিন দিনেরও অধিক জমিয়ে রেখে খাওয়া জায়েজ। (বাদায়েউস সানায়ে : ৪/২২৪, মুসলিম ২/১৫৯, মুয়াত্তা মালেক : ১/৩১৮)শরিকে কোরবানি করলে ওজন করে গোশত বণ্টন করতে হবে। অনুমান করে ভাগ করা জায়েজ নয়। (আদ্দুররুল মুখতার : ৬/৩১৭, কাজিখান : ৩/৩৫১)

কোরবানির গোশতের এক-তৃতীয়াংশ গরিব-মিসকিনকে এবং এক-তৃতীয়াংশ আত্মীয়-স্বজন ও পাড়া-প্রতিবেশীকে দেওয়া উত্তম। অবশ্য পুরো গোশত যদি নিজে রেখে দেয়, তাতেও কোনো অসুবিধা নেই। (বাদায়েউস সানায়ে : ৪/২২৪, আলমগিরি : ৫/৩০০)

মহানবী (সা.)-এর পক্ষ থেকে কোরবানি করা যাবে কি?

সামর্থ্যবান ব্যক্তির রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর পক্ষ থেকে কোরবানি করা উত্তম। এটি বড় সৌভাগ্যের বিষয়ও বটে। রাসুলুল্লাহ (সা.) আলী (রা.)-কে তাঁর পক্ষ থেকে কোরবানি করার অসিয়ত করেছিলেন। তাই তিনি প্রতিবছর রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর পক্ষ থেকেও কোরবানি দিতেন। (আবু দাউদ : ২/২৯, তিরমিজি : ১/২৭৫)

কাজের লোককে কোরবানির গোশত দেওয়া যাবে কি?

কোরবানির পশুর কোনো কিছু পারিশ্রমিক হিসেবে দেওয়া জায়েজ নয়। গোশতও পারিশ্রমিক হিসেবে কাজের লোককে দেওয়া যাবে না। অবশ্য এ সময় ঘরের অন্যান্য সদস্যের মতো কাজের লোকদেরও গোশত খাওয়ানো যাবে। (আহকামুল কোরআন জাসসাস : ৩/২৩৭, বাদায়েউস সানায়ে : ৪/২২৪)