আন্তর্জাতিক

হোটেলে ভারতীয় অভিনেত্রীর ঝুলন্ত লাশ, হত্যা নাকি আত্মহত্যা?

ভারতের শিলিগুড়ির এয়ারভিউ মোড়ের চার্চ রোডের কাছের একটি হোটেলে মারা যান টালিউডের অভিনেত্রী পায়েল চক্রবর্তী। তিনি মঙ্গলবার (৪ সেপ্টেম্বর) রাতে মারা যান বলে জানা গেছে। বুধবার সকালে ওই হোটেলের ঘরের দরজা ভেঙে তার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার কর পুলিশ।

তবে তিনি আত্মহত্যা করেছেন নাকি তাকে হত্যা করা হয়েছিল তা নিয়ে চলছিল নানা জল্পনা-কল্পনা। প্রাথমিক তদন্তে পুলিশের অনুমান করে বলছে আত্মহত্যাই করেছেন তিনি।

এ বিষয়ে আনন্দবাজার পত্রিকার খবরে বলা হয়েছে, টালিউডে কাজ করার কারণে সংসারে বেশি সময় দিতে পারছিলেন না পায়েল। এই অভিযোগেই ২০০৬-এ পায়েলের বিরুদ্ধে বিবাহ বিচ্ছেদের মামলা দায়ের করেন তার স্বামী। তাদের ৯ বছরের একটি ছেলে আছে, সে পায়েলের স্বামীর সঙ্গে টালিগঞ্জে থাকে। পায়েলের পরিবারের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে, ছেলেকে কাছে না পাওয়ায় তীব্র মানসিক যন্ত্রণায় ভুগতেন এই অভিনেত্রী।

জানাগেছে, সোমবার (৪ সেপ্টেম্বর) রাতে পরিবারের সঙ্গে শেষ কথা বলে সে। মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাতটায় শিলিগুড়ির ওই হোটেলে ১৩ নম্বর ঘরে চেক ইন করেন পায়েল। এরপর মঙ্গলবার (৪ সেপ্টেম্বর) সকাল থেকেই তার ফোন সুইচড অফ পান পরিবারের লোকজন। মেয়ের কোনও খবর না পেয়ে মঙ্গলবারই পঞ্চসায়র থানায় একটি মিসিং ডায়েরি করেন পায়েলের মা।

বুধবার নির্দিষ্ট সময়ে তাকে ডাকতে গিয়ে বারবার দরজা ধাক্কা দেওয়ার পরও কোনও সাড়া না পেয়ে খবর দেওয়া হয় শিলিগুড়ি থানায়। এরপর শিলিগুড়ি থানার পুলিশ এসে তার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেন।

এদিকে মেয়ের মৃত্যুর জন্য পায়েলের বাবা, পায়েলের স্বামীর বিরুদ্ধে তার কোনও অভিযোগ না করলেও ছেলেকে কাছে না পাওয়ার মানসিক টানাপড়েনকেই দায়ী করেছেন তিনি।

পায়েল ২০১৫ সাল থেকেই টালিউডে কাজ শুরু করেন। আসন্ন মুক্তিপ্রাপ্ত ছবি ‘কেলো’-তে অন্যতম মুখ্য চরিত্রে অভিনয় করেছেন পায়েল। অভিনয় করেছেন নানা সিরিয়াল ও ওয়েব সিরিজেও। দেব অভিনীত ‘ককপিট’ ছবিতেও একটি পার্শ্বচরিত্রে অভিনয় করতে দেখা গিয়েছিল তিনি।

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More

Privacy & Cookies Policy