এক্সক্লুসিভ

ট্রেনে দাড়ি কামিয়ে ৩৭ লাখ টাকার বেশি ‘রোজগার’ তার!

এক্সক্লুসিভ ডেস্ক: অ্যান্টনি টোরেসের ভিডিও ভাইরাল হয়ে যায় ইন্টারনেটে। তিনি চলন্ত ট্রেনে বসে কোনো আয়না ছাড়াই দাড়ি কামাচ্ছিলেন। তার ভিডিওটি ভাইরাল হতেই তিনি সোশ্যাল মিডিয়ায় হাসির খোরাক হয়ে যান।

কিন্তু এই হাসির খোরাক হয়েই তার ভাগ্য ফিরে গেল। পেলেন ৩৭ লাখ টাকার ওপর অনুদান ও অনেক চাকরির প্রস্তাব।

অনেকেই ভেবেছিলেন তিনি এতই ব্যস্ত যে অ্যান্টনি বাড়িতে দাড়ি কাটার সময় পাননি। কিন্তু বিষয়টি আসলে তেমন নয়।

যুক্তরাষ্ট্রের এই ব্যক্তি আসলে গৃহহীন। তার চাকরিও নেই। গৃহহীনদের শেল্টারে তার রাত কাটে। এক ভাইয়ের কাছে যেতে চেয়ে ফোন করেছিলেন। সেই ভাই অন্য এক ভাইয়ের বাড়িতে যাওয়ার জন্য অ্যান্টনিকে একটি ট্রেনের টিকিট পাঠান।

নিউ জার্সির ট্রেনে চেপে তার হঠাৎ মনে হয়, তাকে দেখতে খুব বাজে লাগছে। ভাইয়ের স্ত্রী ও বাচ্চারা কী ভাববে! তার জন্যই তিনি ট্রেনের মধ্যেই রেজার ও শেভিং ক্রিম বের করে দাড়ি কামাতে আরম্ভ করেন।

পাশের এক যাত্রী অ্যান্টনির এই কাণ্ড ক্যামেরাবন্দি করেন। সেই ভিডিও ভাইরাল হতেই অনেকেই নেতিবাচক কমেন্ট করতে থাকেন। অনেকে গালিও দেন অ্যান্টনিকে। তার এক ভাইজি এই ভিডিওটি তাকে দেখায়। তারপর অ্যান্টনি ঠিক করেন, তিনি আর ট্রেনেই চড়বেন না।

ওয়াশিংটন পোস্টের সাংবাদিক তাকে খুঁজে বের করে একটি সাক্ষাৎকার নেন। সেখানে তিনি জানান, তার কোনো বাড়ি নেই। কোনো কাজও নেই। কারণ তিনি অসুস্থ, আর বেশ কয়েক বছর আগে আহত হয়েছিলেন। ফলে ভারি কাজ করতে পারেন না।

এর পরেই চাকা ঘুরতে থাকে। অনেকেই অ্যান্টনির পক্ষ নিতে থাকেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। জর্ডন উহল নামে এক ব্যক্তি গোফান্ডমি-র পেজে গিয়ে অ্যান্টনির জন্য অনুদান জোগাড় করতে থাকেন।

দু’দিনের মধ্যে সেখানেই ৩৭ লাখ টাকার উপরে পেয়ে যান। শুধু তাই নয় তিনি অনেক চাকরির প্রস্তাবও পেয়েছেন।

‘আমি খুব খুশি। নিজেকে মানুষ মনে হচ্ছে এখন। লোকে এবার আমার আসল কাহিনি জানতে পেরেছে’, বলছেন ৫৬ বছর বয়সী অ্যান্টনি।

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More

Privacy & Cookies Policy