খেলাধুলা

০-২ গোলে মেক্সিকোকে হারিয়ে জয় পেল আর্জেন্টিনা

লিওনেল মেসিকে ছাড়াই আজ আবারো মাঠে নেমেছিল আর্জেন্টিনা। আলবিসেলেস্তেদের প্রতিপক্ষ ছিল মেক্সিকো। এ ম্যাচটি শুরু হয়েছিল আজ শনিবার বাংলাদেশ সময় ভোর ৬টায়। প্রথম প্রথমার্ধে মেক্সিকোকে ১ গোল দেয় আর্জেন্টিনা। পরে ম্যাচের ৮২ মিনিটে অনাকাঙ্ক্ষিত নিজের গোল নিজেই দিয়ে দেয় মেক্সিকো। ফলে ০-২ গোলে মেক্সিকোকে হারিয়ে জয় পেল আর্জেন্টিনা।

এদিকে, জাতীয় দলে এখনই ফিরছেন না মেসি। তবে, দেরিতে হলেও ভবিষ্যতে জাতীয় দলে তার ফেরার ব্যাপারে বেশ আশাবাদী আর্জেন্টাইনদের অন্তর্বর্তীকালীন কোচ স্ক্যালোনি। অন্যদিকে, মেসির মতো ফুটবলারের বিপক্ষে খেলার সুযোগ না পাওয়ায় কিছুটা হতাশ মেক্সিকানরা।

রাশিয়ায় শক্তিশালী জার্মানদের দম্ভ ভূপাতিত। গ্যালারি জুড়ে মেক্সিকান ওয়েভ। যে আত্মবিশ্বাসের প্রভাবটা ব্রাজিলের বিপক্ষে ম্যাচেও ছিলো স্পষ্ট। প্রীতি ম্যাচে লাতিন আমেরিকার পরাশক্তি আর্জেন্টিনার মুখোমুখি হওয়ার আগেও বিশ্বকাপের সুখস্মৃতি সঙ্গী করে এগোচ্ছে মেক্সিকো। র‌্যাঙ্কিংয়ে আর্জেন্টিনা আছে ১২’তে আর মেক্সিকোর অবস্থান ১৬। তার ওপর, অ্যাঞ্জেল গুয়ার্দাদো, হাভিয়ের হার্নান্দেজরা আছেন ক্যারিয়ারের সায়াহ্নে। যদিও তারুণ্য নির্ভর দল নিয়ে জায়ান্ট বধে প্রত্যয়ী তারা।

মেক্সিকো অন্তর্বর্তীকালীন কোচ রিকার্ডো ফেরেত্তি বলেন, র‌্যাঙ্কিং নিয়ে যদি বলতে হয়, আমি বলবো অনেক পিছিয়ে থেকেও সবশেষ বিশ্বকাপে জার্মানির মতো দলকে হারিয়েছিলাম আমরা। ব্রাজিলের বিপক্ষেও ছেলেরা দুর্দান্ত খেলেছিলো। তাই ওসব নিয়ে মাথা ঘামাতে চাইনা। দলটা তারুণ্য নির্ভর। আমার বিশ্বাস, ২০২২ ও ২০২৬ বিশ্বকাপও মাতাবে তারা।

আর্জেন্টিনার খেলা, আর মেসিকে নিয়ে কথা হবেনা- তা তো হতেই পারেনা। কিন্তু, জাতীয় দলে যে আপাতত ফিরছেন না, সেটার আভাস বিশ্বকাপের পরই দিয়েছিলেন এলএমটেন। কোচের কথায় যা আরো পরিষ্কার হয়।

আর্জেন্টিনার অন্তর্বর্তীকালীন কোচ লিওনেল স্ক্যালোনি বলেন, কোপা আমেরিকায়ও সে খেলবে কি খেলবে না, তা নিয়ে কোনো কথা হয়নি। যদিও আমার বিশ্বাস, দেরিতে হলেও জাতীয় দলের জার্সিতে আবারো খেলবে লিও।

এখন পর্যন্ত ২৮ বার মুখোমুখি হয়েছে আর্জেন্টিনা ও মেক্সিকো। যার মধ্যে ১৩ বার জয় স্বাগতিক দলের। আলবিসেলেস্তেদের বিপক্ষে মেক্সিকানদের সবশেষ জয় ২০০৪ কোপা আমেরিকায়। মেসি না থাকলেও, আধিপত্যটা ধরে রাখতে চায় আলবিসেলেস্তেরা।

আর্জেন্টিনা কোচ আরো বলেন, এ ম্যাচে ইকার্দি খেলছেনা। তবে, আরো একবার সামর্থ্যের প্রমাণ দেয়ার সুযোগ আছে পাওলো দিবালার। সে খুবই আক্রমণাত্মক ফুটবলার।

সবশেষ ৫টি হোম ম্যাচে আর্জেন্টিনার জয় ৩টিতে। আর অ্যাওয়ে ম্যাচে মেক্সিকোর জয় ১টি। তবে, এসব পরিসংখ্যান নিয়ে মাথা না ঘামিয়ে ভালো কিছুর প্রত্যাশায় এল ত্রাইরা। আছে আরো একটা বিষয়। এ ম্যাচে মেসির বিপক্ষে খেলতে নাকি উন্মুখ হয়ে ছিলো মেক্সিকানরা। কিন্তু, সেটি না হওয়ায়, বেশ হতাশ তারা।