অন্যান

৩০শে ডিসেম্বর ভোটের দিন প্রতিরোধের দেয়াল তৈরি করতে হবে ‘মির্জা ফখরুল’

নিউজ ডেস্ক: ৩০শে ডিসেম্বর ভোটের মাধ্যমে এ সরকারের পতন ঘটানো হবে বলে হুশিয়ারি দিয়েছেন বিএনপি’র মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, ভোটের দিন প্রতিরোধের দেয়াল তৈরি করতে হবে, জনগণকে সঙ্গে নিয়ে ভোট কেন্দ্র পাহাড়া দিতে হবে। তবেই আমাদের জয় নিশ্চিত। মঙ্গলবার সুপ্রীম কোর্ট বার এসোসিয়েশন মিলনায়তনে বিএনপি’র সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের ৫৪তম জন্মদিনের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

ফখরুল বলেন, জনগণ আমাদের শক্তি। তারাই সিলেট সিটি কর্পোরেশনে জয়লাভ করিয়েছে। সিলেটে সরকার কম চেষ্টা করেনি। কিন্তু পারেনি।
জনগণ প্রতিরোধ করেছে। সংসদ নির্বাচনে জনগণের শক্তি দিয়ে দেয়াল তৈরি করে প্রতিরোধ গড়তে হবে। সরকারকে বাধ্য করতে হবে একটা সুষ্ঠু নির্বাচন দিতে। এর কোন বিকল্প নেই। এটা আমাদের বাঁচা-মরার, অস্তিত্বের সংগ্রাম। নেতা-কর্মীদের উদ্দেশ্যে ফখরুল বলেন, আপনারা পালিয়ে পালিয়ে না বেড়িয়ে জনগণের বাড়ি বাড়ি যান। তাদের ভোটের দিন নিয়ে আসুন। তাহলেই আমরা জয়যুক্ত হবো। ভোটের দিন সবাইকে নিয়ে ভোট কেন্দ্রে আসতে হবে, ওখানে ভোটের চূড়ান্ত আন্দোলনের জয়লাভ করতে হবে। ৩০শে ডিসেম্বর নির্বাচনের দিন আমাদের সমস্ত সামর্থ্য ব্যবহার করতে হবে। আর আমাদের অস্ত্র হচ্ছে ভোটের অস্ত্র।

জনগণের ঐক্যকে সরকার প্রচ- ভয় পেয়েছে। এতো ভয় পাচ্ছে যে, লন্ডন থেকে তারেক রহমান স্কাইপে কথা বলছেন, সেটা পর্যন্ত বন্ধ করে দিয়েছে। ইন্টারনেট বন্ধ করে দিয়েছে। আর গ্রেপ্তার করা হবে না, তারপরও গণগ্রেপ্তার চলছে। নেতা-কর্মীদের ভয় দেখাচ্ছে। বিএনপি’র প্রতীক ধানের শীষ হবে নাকি ধানের ছড়া এটা নিয়ে রিট করা হয়েছে। সরকার কতটা দেউলিয়া হলে এমন কাজ করতে পারে। তিনি বলেন, আমরা ঐক্যবদ্ধ থাকলে ৩০শে ডিসেম্বরের পর এদেশে স্বাধীন মানুষের পতাকা উড়বে, আওয়ামী লীগের পতাকা আর উড়বে না।

অনুষ্ঠানে নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, বাংলাদেশে উন্নয়নের নামে দ্রুতগতির ধনীর সংখ্যা বেড়েছে। এক কোটি শিক্ষিত বেকার হয়েছে। এসব প্রশ্ন করলে সরকার গালিগালাজ শুরু করে দেয়। আমরা এ পদ্ধতি বদলে দিবো, এ সমাজ বদলে দিবো, সে রকম সমাজ গঠন করতে চাই, যেখানে গণতন্ত্র সুশাসন উন্নয়ন সব একই সঙ্গে চলবে। বিচার বিভাগ সম্পূর্ণ স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারে। নেতা-কর্মীদের উদ্দেশ্য তিনি বলেন, আপনারা ঘরে থাকতে পারেন আর না পারেন মানুষের ঘরে ঘরে যেতে হবে।

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More

Privacy & Cookies Policy