অন্যান

রংপুরকে হারিয়ে ফাইনালে কুমিল্লা

বিপিএলে আসরের প্রথম কোয়ালিফায়ারে বেনি হাওয়েলের হাফসেঞ্চুরি ও রাইলে রুশোর অসাধারণ ব্যাটিংয়ে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের বিপক্ষে ১৬৫ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর দাঁড় করায় রংপুর রাইডার্স। নির্ধারিত ২০ ওভার শেষে ৫ উইকেট হারিয়ে এই সংগ্রহ পায় মাশরাফি ও তার দল। ১৬৬ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে ইভেন লুইসের ৭১ রানে ৮ উইকেট জয় নিয়ে ফাইনালে কুমিল্লা।

তবে রংপুর হারলেও তাদের সামনে ফাইনালে ওঠার সুযোগ রয়েছে। আগামী বুধবার দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ার ম্যাচে ঢাকা ডায়নামাইটসের মুখোমুখি হবে রংপুর রাইডার্স। ওই ম্যাচে যারা জিতবে তারা ফাইনালে কুমিল্লার মুখোমুখি হবে। ফাইনাল ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হবে ৮ ফেব্রুয়ারি।

মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ম্যাচটিতে রংপুর রাইডার্সের দেয়া ১৬৬ রানের জয়ের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে ১৮.৫ ওভারে দুই উইকেট হারিয়ে জয় তুলে নেয় কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। দলের পক্ষে হাফ সেঞ্চুরি করেন ওপেনার এভিন লুইস। ৫৩ বলে পাঁচটি চার ও তিনটি ছক্কার সাহায্যে ৭১ রান করে অপরাজিত থাকেন তিনি। ৩২ বলে দুইটি চার ও দুইটি ছক্কার সাহায্যে ৩৯ রান করেন এনামুল হক বিজয়। ১৫ বলে চারটি চার ও দুইটি ছক্কার সাহায্যে ৩৪ রান করেন শামসুর রহমান। রংপুর রাইডার্সের পক্ষে মাশরাফি বিন মর্তুজা ১টি ও শফিউল ইসলাম ১টি করে উইকেট শিকার করেন।

কুমিল্লা ব্যাটিংয়ে নেমে দলীয় ৩৫ রানে প্রথম উইকেট হারায়। ইনিংসের পঞ্চম ওভারে মাশরাফির বলে হাওয়েলের হাতে ক্যাচ হন তামিম ইকবাল। ১৪ বলে ১৭ রান করেন তিনি। এরপর ৯০ রানের জুটি গড়েন এভিন লুইস ও এনামুল হক বিজয়। দলীয় ১২৫ রানে শফিউলের ইয়র্কার ডেলিভারিতে বোল্ড হন বিজয়। এরপর লুইস ও শামসুর রহমান জুটি বেঁধে দলের জয় নিশ্চিত করে মাঠ ছাড়েন।

এর অাগে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের বিপক্ষে টসে জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধন্ত নেন রংপুর রাইডার্স অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা। প্রথমে ব্যাটিংয়ে নামা রংপুরের শুরুটা অবশ্য ভালো হয়নি। দলীয় ১৭ রানে ওপেনার মেহেদি মারুফকে (১) সঞ্জিত সাহার ক্যাচে বিদায় করেন ওহাব রিয়াজ। পরে ব্যক্তিগত ৩ রান করে রান আউটের শিকার হন মোহাম্মদ মিঠুন।

পুরো টুর্নামেন্টে ফ্লপ ক্যারিবিয়ান দানব ক্রিস গেইল নিজেকে রানে ফেরাতে বেশ চেষ্টা করেন। যদিও ধীর ব্যাটিংয়েই রান তোলেন তিনি। কিন্তু শেষ পর্যন্ত ৪৪ বলে ৬টি চার ও একটি ছক্কায় ৪৬ করে মেহেদি হাসানের বলে মাঠ ছাড়া হন। সুবিধে করতে পারেননি রবি বোপারা।

৯ বল খেলে মাত্র ৩ রানে সঞ্জিতে শিকারে পরিণত হন। তবে ফর্মে থাকা রাইলে রুশো দলের রান এগিয়ে নিতে দারুণ ব্যাটিং করেন। মোহাম্মদ সাইফুদ্দিনের বলে আউট হওয়ার আগে ৩১ বলে ৪টি চার ও দুটি ছক্কায় ৪৪ করেন তিনি।

শেষ দিকে মারমুখী ব্যাটিং করা বেনি হাওয়েল তুলে নেন অসাধারণ এক হাফসেঞ্চুরি। শেষ পর্যন্ত তিনি ২৮ বলে ৩টি চার ও ৫টি ছক্কায় ৫৩ রানে অপরাজিত থাকেন। নাহিদুল ইসলাম ৬ রানে অপরাজিত থাকেন। কুমিল্লার বোলারদের মধ্যে একটি করে উইকেট পান সাইফ, মেহেদি, ওহাব রিয়াজ ও সঞ্জিত।