32 C
Bangladesh
May 21, 2022
ফুটবল

কে পাচ্ছেন ইউরোপিয়ান গোল্ডেন বুট?

ইউরোপিয়ান ফুটবলের এবারের মৌসুমের এখন চলছে শেষ মুহূর্তের হিসাব-নিকাশ। লিগের শিরোপা কার ঘরে যাচ্ছে তার একটা ইঙ্গিত যেমন পাওয়া যাচ্ছে, ব্যক্তিগত প্রতিযোগিতারও ফল চলে আসছে প্রায়। ইউরোপিয়ান ফুটবলে প্রতিটি লিগ নিজ নিজ লিগের শীর্ষ গোলদাতাদের পুরস্কৃত করে থাকে। আবার সব লিগ মিলিয়ে গোলের জন্য পাওয়া সর্বোচ্চ পয়েন্টধারী ফুটবলার পাবেন ইউরোপিয়ান গোল্ডেন বুট। সোনার জুতোর এই লড়াই মূলত সীমাবদ্ধ থাকে শীর্ষ পাঁচ লিগের খেলোয়াড়দের মধ্যেই। গোলপ্রতি পয়েন্টের তারতম্যের জন্য শীর্ষ পাঁচ লিগের বাহিরে কারো পক্ষে ইউরোপিয়ান গোল্ডেন বুট জয় করা বলতে গেলে অসম্ভব।
কে পাচ্ছেন ইউরোপিয়ান গোল্ডেন বুট?

ইউরোপিয়ান ফুটবলের শীর্ষ গোলদাতাকে দেওয়া হয় ইউরোপিয়ান গোল্ডেন বুট। এই পুরস্কার প্রথম দেওয়া হয় ১৯৬৭-৬৮ মৌসুমে। প্রথমবার এই পুরস্কার জয় করেন বেনফিকার পর্তুগিজ কিংবদন্তি ইউসেবিও। ব্ল্যাক প্যান্থারখ্যাত ইউসেবিওর অসাধারণ ফুটবল নৈপুণ্যে বেনফিকা সে সময় ইউরোপের শ্রেষ্ঠ ফুটবল দলে পরিণত হয়েছিল।

ইউরোপিয়ান গোল্ডেন বুট সর্বাধিকবার জয় করেন বার্সেলোনার সাবেক ও বর্তমানে পিএসজিতে খেলা লিওনেল মেসি। মোট ছয়বার তিনি এ পুরস্কার জয় করেন। আরেক মহাতারকা ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোও চারবার জিতেছেন ইউরোপিয়ান গোল্ডেন বুট। তবে এবার এই পুরস্কারের লড়াইয়ে নেই মেসি-রোনালদোর দুজনের কেউই।

ইউরোপিয়ান গোল্ডেন বুটের লড়াইয়ে পয়েন্ট গণনার ক্ষেত্রে লিগ হিসেবে ভিন্নতা রয়েছে। শীর্ষ পাঁচ লিগে প্রতি গোলের জন্য ২ পয়েন্ট করে যোগ হলেও অন্য লিগের বেলায় পয়েন্ট গণনা করা হয় ১.৫ করে। তাই ডাচ লিগ বা পর্তুগিজ লিগের খেলোয়াড়রা এই লড়াইয়ে পিছিয়ে থাকেন।

ইউরোপিয়ান ক্লাব ফুটবলের র‍্যাঙ্কিংয়ে শীর্ষ পাঁচ লিগ হলো: ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ, লা লিগা, সিরি আ, বুন্দেসলিগা ও লিগ ওয়ান।

২০২১-২২ মৌসুমে গোল্ডেন বুটের লড়াইয়ে শীর্ষ ১০ জনের মধ্যে এই পাঁচ লিগের বাহিরের নেই কেউই।

১০. আর্লিং হালান্ড (বরুশিয়া ডর্টমুন্ড): ২১ বছর বয়সী স্ট্রাইকার এবারের লিগে ১৮ গোল করেছেন। গোল্ডেন বুটের লড়াইয়ে পিছিয়ে পড়লেও এবারের দলবদলের বাজারে সবাইকে টেক্কা দিতে পারেন এই নরওয়েজিয়ান। তার অর্জিত পয়েন্ট ৩৬।

৯. উইসাম বেন ইয়েদার (মোনাকো): গত কয়েক মৌসুম থেকে ইউরোপের সেরা গোলদাতাদের তালিকায় জায়গা পাওয়া মোনাকোর এই ফরাসি লিগ ওয়ানে এই মৌসুমে ১৯ গোল করে অর্জন করেছেন ৩৮ পয়েন্ট।

৮. মার্টিন টেরিয়ার (রেনে): লিগ ওয়ানের আরও একজন আছেন এ তালিকায়। রেনের ফরাসি ফরোয়ার্ড মার্টিন টেরিয়ার ২০ গোল নিয়ে আছেন তালিকার আট নম্বরে। ২৪ বছর বয়সী টেরিয়ার এই গোল করার পথে হ্যাটট্রিক করেছেন সেন্ট এতিয়েনের বিপক্ষে। তার অর্জিত পয়েন্ট ৪০।

৭. প্যাট্রিক সেচিক (বেয়ার লেভারকুসেন): ইউরোর সবশেষ আসরে চমক দেখানো চেক প্রজাতন্ত্রের এই স্ট্রাইকার গত মৌসুমে লিগে করেছিলেন ৯ গোল। এবার নিজেকে ছাড়িয়ে পৌঁছে গেছেন সেরাদের কাতারে। ২০ গোল নিয়ে সেচিক আছেন সাত নম্বরে। তার অর্জিত পয়েন্ট ৪০।

৬. কিলিয়ান এমবাপ্পে (পিএসজি): দিনে দিনে পিএসজির মেইন ম্যানে পরিণত হওয়া বিশ্বকাপজয়ী ফরাসি এ মৌসুমে আছেন দুর্দান্ত ফর্মে। সমানে গোল করছেন এবং করিয়ে চলেছেন। লিগ শিরোপা জয়ের পথে থাকা পিএসজি তারকা এ মৌসুমে এরই মধ্যে করে ফেলেছেন ২২ গোল। ৪৪ পয়েন্ট নিয়ে ছয়ে আছেন এমবাপ্পে।

৫. মোহামেদ সালাহ (লিভারপুল): ইংলিশ লিগে শিরোপার লড়াইয়ে ম্যানসিটিকে টেক্কা দেওয়া লিভারপুলের মিশরীয় ফরোয়ার্ড নিঃসন্দেহে এই মৌসুমের অন্যতম সেরা ফুটবলার। গোল ও অ্যাসিস্ট দুটোই সমানতালে করছেন। এ মৌসুমে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের বিপক্ষে হ্যাটট্রিক করেছেন। গোল করেছেন ম্যানচেস্টার সিটি ও চেলসির বিপক্ষেও। ২২ গোল নিয়ে তিনিও আছেন সেরা পাঁচে। তার অর্জিত পয়েন্ট ৪৪।

৪. দুসান ভ্লাহভিচ (য়্যুভেন্তাস/ফিওরেন্তিনা) ফুটবলের ভবিষ্যৎ মহারথীদের তালিকায় এমবাপ্পে ও হালান্ডের সঙ্গে সার্বিয়ার দুসান ভ্লাহভিচকেও রাখা হয়। শীতকালীন দলবদলে য়্যুভেন্তাসে যোগ দিয়ে মানিয়ে নিতে খুব একটা সময় নেননি। এই মৌসুমজুড়ে গোল করেছেন মুড়ি-মুড়কির মতো। ২৩ গোল করে ৪৬ পয়েন্ট নিয়ে চারে আছেন দুসান ভ্লাহভিচ।

৩. করিম বেনজেমা (রিয়াল মাদ্রিদ): করিম বেনজেমা এই মৌসুমে যা করেছেন তারপর তো মৌসুম শেষের আগেই তার হাতে সেরা ফুটবলারের স্বীকৃতি ব্যালন ডি’অর দেখছেন অধিকাংশ ফুটবলবোদ্ধা। লা লিগা শিরোপা একপ্রকার নিশ্চিতই রিয়াল মাদ্রিদের। চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সেমিফাইনালেও রিয়াল উঠেছে বেনজেমার রূপকথার ফুটবলে।

পিএসজি ও চেলসির বিপক্ষে ব্যাক টু ব্যাক হ্যাটট্রিক করে তাদের বিদায় করে দিয়েছেন টুর্নামেন্ট থেকে। লিগে ২৫ গোল করে লা লিগার সর্বোচ্চ গোলদাতার পুরস্কার পিচিচি একপ্রকার নিশ্চিত করে রেখেছেন বেনজেমা। ইউরোপিয়ান গোল্ডেন বুটের লড়াইয়ে কিছুটা পিছিয়ে থাকলেও দলকে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে ম্যানসিটি-বাধা পার করতে পারলে নিশ্চয়ই বেনজেমার এ নিয়ে কোনো আক্ষেপ থাকবে না আর।

২. চিরো ইমোবিলে (ল্যাজিও): এক মৌসুম আগেই রোনালদোকে টেক্কা দিয়ে ইউরোপিয়ান গোল্ডেন বুট জিতেছিলেন ল্যাজিওর স্ট্রাইকার। বর্তমানের অন্যতম আন্ডাররেটেড স্ট্রাইকারদের একজন চিরো ইমোবিলে এ মৌসুমেও আছে গোল্ডেন বুটের লড়াইয়ে। বেনজেমার সমান ২৫ গোল করা ইমোবিলের পয়েন্ট ৫০।

১. রবার্ট লেভানদোভস্কি (বায়ার্ন মিউনিখ): গতবারে যেখানে থেমেছিলেন, এবার সেখান থেকেই শুরু করেছেন পোলিশ স্ট্রাইকার। বায়ার্নের জার্সি গায়ে একের পর এক রেকর্ড নিজের করে নেওয়া লেভা নিজেকে নিয়ে গেছেন সবার ধরাছোঁয়ার বাহিরে। এ মৌসুমে এখন পর্যন্ত তার গোল ৩২টি। লিগগুলোতে মোটামুটি ৫-৭ ম্যাচ বাকি থাকায় তাকে ধরা প্রায় অসম্ভব। অলৌকিক কিছু না হলে এখন পর্যন্ত ৬৪ পয়েন্ট নিয়ে বাকিদের চেয়ে যোজন দূরত্বে থাকা লেভানদোভস্কিই ২০২১-২২ ইউরোপিয়ান ফুটবল মৌসুমের গোল্ডেন বুট জিতছেন।

এ ছাড়া এই মৌসুমে গোলের বন্যা ছোটানো তারকাদের মধ্যে আছেন সন হিউং মিন, ক্রিস্টোফার এনকুনকু, জিওভান্নি সিমিওনে, অ্যান্টোনি মডেস্ট, মুসা দেম্বেলেরা। ইংলিশ লিগে ১৬ গোল করা ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোও আছেন তালিকার সেরা বিশে। এই মৌসুমে ইউরোপিয়ান গোল্ডেন বুটের লড়াইয়ে ১৬তম অবস্থানে আছেন সিআর সেভেন।

আরো পড়ুন

ভারতের মুসলমানদের পাশে দাঁড়ালেন ওজিল।

Shohag

স্ত্রী’র ইচ্ছায় আবারো বার্সেলোনায় ফিরছেন মেসি!

Shohag

বেনজেমার জোড়া পেনাল্টি মিস; তারপরও রিয়ালের জয়

Shohag