19 C
Bangladesh
December 5, 2022
খেলাধুলা

আনামুল হক বিজয়ের ক্যারিয়ার সেরা ইনিংসে টানা চার ম্যাচে জয় তুলে নিল প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাব।

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে প্রত্যাশিত জয় তুলে নিয়েছে প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাব। ‌ আর এই জয়ের ফলে এখন পর্যন্ত চার ম্যাচের মধ্যে চারটিতে জয়লাভ করেছে মোহাম্মদ মিঠুনের প্রাইম ব্যাংক। আগে ব্যাট করতে নেমে এনামুল হক বিজয় ১৮৪ রানের ৩৮৯ রানের টাইগার দেয় প্রাইম ব্যাংক। ‌ জবাবে ৮ উইকেটে ২৭৭ রানে থামে শাইনপুকুর। ১১১ রানের বিশাল জয় পেয়েছে প্রাইম ব্যাংক।

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে আজ শাহিন পুকুর ক্রিকেট ক্লাবের মুখোমুখি হয় প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাব। বিকেএসপির ৪ নম্বর মাঠে টসে হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই ব্যাটিং তাণ্ডব শুরু করেন আনামুল হক বিজয়।

একের পর এক বাউন্ডারি হাঁকিয়ে তুলে দেন লিস্ট এ ক্রিকেট ক্যারিয়ারের ১৪ তম সেঞ্চুরি। সেঞ্চুরি তুলে নিয়ে আরো বিধ্বংসী রূপে খেলতে থাকে আনামুল হক বিজয়। ক্যারিয়ারে প্রথমবারের মতো ডাবল সেঞ্চুরির পথে হাঁটতে থাকেন তিনি।

ডাবল সেঞ্চুরি থেকে ১৬ রান দূরে ১৮৪ রান করে আউট হন আনামুল হক বিজয়। এই সময়ে ১৪২ বল খেলে ১৮টি চার এবং ৮ টা ছক্কা হাঁকিয়ে ১৮৪ রান সংগ্রহ করেন তিনি। তার ১৮৪ রানের অবিশ্বাস্য ইনিংসে শাইনপুকুর ক্রিকেট ক্লাবের বিপক্ষে ৫ উইকেটে ৩৮৮ রান করেছে দলটি।

বিকেএসপির মাঠে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নামে প্রাইম ব্যাংক। শুরু থেকে বিধ্বংসী ছিলেন বিজয়, ২০তম ওভারে কাউ কর্নার দিয়ে এক রান নিয়ে ৭৫ বলে সেঞ্চুরি করেন। ওপেনিংয়ে তার সঙ্গী শাহাদাত দীপু (৪৭) হাফ সেঞ্চুরির আক্ষেপে পুড়লেও ১৬২ রানের জুটি গড়ে দিয়ে যান।

এরপর বিজয়কে দারুণ সঙ্গ দেন অভিমন্যু ঈশ্বরণ। এই ভারতীয় ব্যাটসম্যান ৩০ রান করেন। বিজয়ের সঙ্গে তার জুটি ছিল ৭৬ রানের। এই জুটিতেই দেড়শতে পৌঁছান বিজয়, ৩৫তম ওভারে রাহাতুল ফেরদৌসকে লং অন দিয়ে চার মেরে।

ঈশ্বরণ বিদায় নেওয়ার পর মোহাম্মদ মিঠুনকে সঙ্গী হিসেবে পান বিজয়। দুইশর পথে ছিলেন তিনি। কিন্তু ৪১তম ওভারের শেষ বলে আসাদুজ্জামান পায়েলের কাছে এলবিডব্লিউ হন ১৬ রান দূরে থাকতে।

তার ১৪২ বলের ইনিংসে ছিল ১৮ চার ও ৮ ছয়। বিজয়ের বিদায়ের পর নাসির হোসেন ৩২ বলে ৩ চার ও ৫ ছয়ে ৬১ রানের ঝড় তোলেন। যাতে প্রাইম ব্যাংক প্রায় চারশ রানের বিশাল সংগ্রহ করেছে।

বিশাল লক্ষ্যে নেমে ৩০ রানে আনিসুল ইসলাম ইমনের (১৮) আউট হওয়ার পর রকিবুল হকের জোড়া আঘাতে বিরাট ধাক্কা খায় শাইনপুকুর। ৪২ রানে ৩ উইকেট হারানোর পর সিকান্দার রাজা হাল ধরেন মাহিদুল ইসলাম অঙ্কনের সঙ্গে। ৬০ রানের এই জুটি ভাঙার পর সাজ্জাদুল হক ও সিকান্দারের ১১৮ রানের জুটি লড়াই ধরে রাখে।

সাজ্জাদ ৫৬ রানে বিদায় নেওয়ার পর সিকান্দার বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি। সেঞ্চুরি থেকে দুই রান দূরে থাকতে মেহেদী হাসানকে ফিরতি ক্যাচ দেন, জিম্বাবুয়ান ব্যাটসম্যানের ৯৮ রানের ইনিংস সাজানো ছিল ১০৯ বলে, ৯ চার ও ৪ ছয় ছিল।

পরে ২৫ রানের ব্যবধানে আরো দুটি উইকেট হারালে শাইনপুকুরের পক্ষে হারের ব্যবধান কমান রাহাতুল ফেরদৌস (২৮*) ও হাসান মুরাদ (৩*)। ক্যারিয়ার সেরা ইনিংস খেলে ম্যান অব দ্য ম্যাচ নির্বাচিত হয়েছেন আনামুল হক বিজয়।

আরো পড়ুন

২০১১ এর কষ্ট তোমাকে দেখে ভুলে গিয়েছি জেমি সিডন্স : মাশরাফি বিন মুর্তজা

Shohag

ওয়ানডেতে আমারা দলীয় ৩৫০+ রান করতে চাই : তামিম ইকবাল।

Shohag

আমার বিশ্বাস, ২০২৩ বিশ্বকাপে বাংলাদেশ সেমিফাইনাল খেলবে : মাশরাফি।

Shohag